হরিণাকুন্ডু উপজেলা আ’লীগের সভাপতিসহ ৩ নেতা বহিস্কার আদেশ অবৈধ দাবী করে সংবাদ সম্মেলন

85

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ গত শনিবার ২৩ শে জানুয়ারি বহিস্কার করা হয়েছে হরিণাকুন্ডু উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মশিউর রহমান জোয়ার্দ্দার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শরিফুল ইসলাম শরিফ ও হরিণাকুন্ডু পৌরসভার বর্তমান মেয়র আওয়ামী লীগ নেতা শাহিনুর রহমান রিন্টু। বহিষ্কারের কারন হিসাবে জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আছাদুজ্জামান আছাদ জানান, ৩য় ধাপে অনুষ্ঠিত হরিণাকুন্ডু পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে পৌরসভার বর্তমান কাউন্সিলর ফারুক হোসেনকে মনোনীত করা হয়েছে।

কিন্তু ওই ৩ আওয়ামী লীগ নেতা বিভিন্ন সময় আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার মেয়র প্রার্থী ফারুক হোসেনের প্রতীকের বিরুদ্ধে নির্বাচনী প্রচারণাসহ মানববন্ধন, উস্কানীমুলক বক্তব্য, উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে বসে নেতাকর্মীদের নৌকার বিরুদ্ধে কাজ করতে উৎসাহিত করে আসছে। এ ঘটনায় মেয়র প্রার্থী ফারুক হোসেন আওয়ামী লীগের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কাছে অভিযোগ করে। তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় কেন্দ্রের নির্দেশে ওই ৩ জনকে বহিস্কার করা হয়েছে।

এই বহিষ্কার আদেশ অবৈধ সম্পূর্ণ অন্যায় এবং সংগঠনের গঠনতন্ত্রের পরিপন্থী দাবী করে ২৪ শে জানুয়ারি রোজ রবিবার শীতলী গ্রামে মশিউর রহমান জোয়ার্দ্দারের বাড়ীতে ১২টার দিকে এক সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে এই দাবী করে সদ্য বহিষ্কার কৃত আওয়ামীলীগ নেতা।

এই সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলো হরিনাকুন্ড উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সহ আওয়ামীলীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। তিনি বলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ৪৭ ধারার ১০ উপ-ধারায় উল্লেখ আছে কাউকে বহিষ্কার করতে হলে জেলা কমিটি সাধারন সভায় ২/৩ সদস্যের মতামাতের ভিত্তিতে কেন্দ্রীয় কমিটিতে সুপারিশ পাঠাতে হবে। তারপর কেন্দ্রীয় কমিটি তদন্তের মাধ্যমে প্রমাণিত হলে তখন চুড়ান্ত বহিষ্কার করবে। তার আগে এই আদেশ কোন গন মাধ্যমে দেওয়ার সুযোগ নেই।

তিনি আরও বলেন যে আমি গত ২৩ তারিখ রোজ শনিবার বেলা ৩ টায় ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জনাব আব্দুল হাই এমপির সাথে নৌকা প্রতীকের ভোট প্রচারনা করছিলাম। প্রচারনা শেষে ঝিনাইদহ ফেরার পথে ফেসবুকের মাধ্যমে জানতে পারলাম যে ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামীলীগ আমাকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শরিফুল ইসলাম শরিফ ও হরিণাকুন্ডু পৌরসভার বর্তমান মেয়র আওয়ামী লীগ নেতা শাহিনুর রহমান রিন্টু কে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

সে আরও জানায় আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী ঘোষণা হওয়ার পর হরিনাকুন্ডূ পৌর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে ২৮ সে ডিসেম্বর বেলা ১ টার দিকে একটি মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত মানব বন্ধনে আমি সহ আওয়ামীলীগের সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিল। উক্ত মানব বন্ধনে আমি জননেত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েই বিষয়টি পুনঃ বিবেচনার অনুরোধ জানাই। কিন্ত সিদ্ধান্ত পরিবর্তন না করায় আমারা বর্তমান প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান গ্রহণ করি এবং ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামীলীগের নির্দেশ মোতাবেক গত ৭/০১/২০২১ তারিখে হরিণকুন্ডূ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা ও পৌর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে বিশেষ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিল জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জনাব আব্দুল হাই এমপি, সাধারন সম্পাদক জনাব সাইদুল করিম মিন্টু, জনাব তাহজীব আলম সিদ্দিকি এম পি, জনাব খালেদা খানম এমপি এবং জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জনাব কনক কান্তি দাস। উক্ত সভায় আমি সভাপতিত্ব করি এবং সাধারন সম্পাদক জনাব রবিউল ইসলাম পরিচালনা করে। এবং ১১/০১/২০২১ তারিখ থেকে পৌর নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারনা শুরু হয়, প্রচারনা শুরু হবার পর থেকেই প্রতিনিয়ন পৌর সভার সকল ওয়ার্ডে নির্বাচনীয় প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছিলাম এই সময়ে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক অন্যায় ভাবে আমাকে বহিষ্কার করে। সাংবাদিক ভাইদের মাধ্যমে জননেত্রী সেখ হাসিনার নিকট সুবিচার প্রার্থনা করছি।