সংবাদ প্রকাশের পর সেই ব্রি’র ফার্ম ম্যানেজার অসিমের দুর্নীতি জন্য গঠিত হলো তদন্ত কমিটি

112
নিজের নামে সংবাদ প্রকাশের পর বিভিন্নভাবে প্রতিবেদককে বশে আনার চেষ্টা করেন বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) সাতক্ষীরার ফার্ম ম্যানেজার অসিম কুমার বিশ্বাস। ছবি - ফাইলফটো।
নিজের নামে সংবাদ প্রকাশের পর বিভিন্নভাবে প্রতিবেদককে বশে আনার চেষ্টা করেন বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) সাতক্ষীরার ফার্ম ম্যানেজার অসিম কুমার বিশ্বাস। ছবি - ফাইলফটো।

মো: জাবের হোসেন : সংবাদ প্রকাশের পর বিভিন্নস্থানে দৌঁড়-ঝাপ শুরু করেছেন সেই অসিম। অনিয়ম, দুর্নীতি আর নানা অপকর্মের জন্য গত ৭ ডিসেম্বর (মঙ্গলবার) দৈনিক পত্রদূত পত্রিকায় “সাতক্ষীরা ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের ফার্ম ম্যানেজার অসিম কুমার বিশ্বাসের দুর্নীতি রুখবে কে?” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

সংবাদ প্রকাশের পর বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) সাতক্ষীরার ফার্ম ম্যানেজার অসিম কুমার বিশ্বাস বিভিন্নস্থানে দোঁড়া-ঝাপ শুরু করেছেন। নিজের অপকর্ম ঢাকতে বিভিন্ন মাধ্যমে তার নামে করা সংবাদের প্রতিবাদ দেওয়ার জন্য হন্নে হয়ে বেড়াচ্ছেন বলেও বিভিন্ন মাধ্যম থেকে শোনা যাচ্ছে। এই অসিমের নামে গত ৩ ডিসেম্বরে দৈনিক পত্রদূত পত্রিকায় আরো একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

অসিম কুমার বিশ্বাস বিভিন্ন ব্যক্তির মাধ্যমে পত্রদূত পত্রিকায় করা সংবাদের প্রতিবেদকের সাথে চা খাওয়ার দাওয়াত দিয়ে যান তিনি। এক পর্যায়ে তিনি বৃহস্পতিবার (৯ ডিসেম্বর) সন্ধ্যার পর সাতক্ষীরার বিনেরপোতায় অবস্থিত একটি রেস্টুরেন্টে দেখা করেন এই প্রতিবেদকের সাথে। তিনি বলেন সংবাদ করেছেন তাতে কি হয়েছে? চাকরি তো আর যাবেনা। হলে হয়তো সর্বোচ্চ আমাকে এখান থেকে অন্যস্থানে বদলী করে দেবে।

কথা বলার এক পর্যায়ে তিনি আরো বলেন, যা করার তা তো করেছেন তবে দেখেন আমার জন্য ভালো কিছু সংবাদ করে দেয়া যায় কিনা! যদি পারেন তাহলে দেখা করবেন এমন কথা বলে যশে আনার চেষ্টা করেন।

তবে দৈনিক পত্রদূত পত্রিকায় করা উক্ত সংবাদের পর ব্রি’র প্রধান কার্যালয় থেকে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশনা দিয়েছে বলে জানা গেছে। যার তদন্ত রিপোর্টের পর প্রধান কার্যালয় পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

সেখানে বসে থাকতে থাকতে আরো কিছু সাংবাদিকেরা অসিমের সাথে ফোনে কথা বলে। অসিম তাদের আসতে বলেন। পরে কাজের ব্যস্থতা থাকায় হয়তো তারা যায়নি বলে পাশ থেকে বসে মোবাইলের অপরপ্রান্ত থেকে শোনা যায়!

দৈনিক পত্রদূত পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর তার আরো কিছু দুর্নীতির সংবাদের তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। যেগুলো যাচাই-বাছাই শেষে সংবাদ প্রকাশিত হবে।