সর্বশেষ সংবাদ

যশোরের শার্শায় মধু সংগ্রহে ব্যস্ত সময় পার করছে ভ্রম্যমান মৌচাষিরা

নিজস্ব প্রতিনিধি: যশোরের শার্শা উপজেলার উলাশী ইউনিয়নের কন্যাদাহ গ্রামে মধু সংগ্রহে ব্যস্ত সময় পার করছে সাতক্ষীরা শ্যামনগর থেকে আসা ভ্রম্যমান মৌচাষিরা। মধু সংগ্রহে এসেছে মামা ভাগ্নে আরাফাত হোসেন (২২) ও আবু বক্কর (২৬)। সরেজমিনে গিয়ে দেখতে পাওয়া যাই, একশত থেকে দেড়শত মৌমাছির বাক্স নিয়ে চলতি মৌসুমের বরই ফুলের মধু সংগ্রহে এসেছেন তারা। মাঠের বরই মুকুলের মৌ মৌ গন্ধে মাছিও নেচে নেচে মধু সংগ্রহে ব্যস্ত। এই সৌন্দর্য দেখার জন্য আশ- পাশের এলাকা থেকেও মানুষ ভিড় জমাচ্ছেন। মৌচাষ সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা বলেন,মৌচাষের উপরে তাদের খুলনা থেকে ৬ বছর আগে হাতে কলমে প্রশিক্ষণ গ্রহন করেছেন। এর আগে তাদের বাপ দাদারা এই চাষ করতো। এই চাষের সাথে তারা প্রায় ১৭-১৮ বছর ধরে জড়িত রয়েছেন। তাদের বর্তমান ব্যবসাই হচ্ছে মৌচাষ। তারা আর্থিক ভাবে সাবলম্ভি ও সচল। প্রতি ৬ মাস অন্তর তারা ৬-৭ লাখ টাকার মধু বিক্রি করে থাকেন রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন কোম্পানি মালিকের কাছে। প্রতি মণ মধু বিক্রি করেন ১০-১২ হাজার টাকা দরে। তবে বরই ফুলের চেয়ে সরিষার ফুলের মধুর দাম অনেত বেশি। আর ঐ সময় গুলো আনন্দে কাটে চাষিদের। মামা ভাগ্নে মৌচাষিরা আরো বলেন, মাননীয় প্রধান মুন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের মৌচাষিদের উপর সু-দৃষ্টি দিয়েছেন বলে আমরা ২৫-৩০ হাজার টাকা লোন পেয়েছি । আর সে টাকা আমরা মৌচাষ করে বছর শেষে পরিশোধ করে দেই। আর সরকার যদি এই মধু বিদেশে রপ্তানি করার প্রসেসিং তৈরী করতে পারে তাহলে দেশের যেমন উন্নয়ণ হবে, আমরাও হবো আর্থিকভাবে লাভবান। নতুন এলাকায় তাদের নিরাপত্তা সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা বলেন,নতুন এলাকায় আসলে একটু তো ঝামেলা হয়। তবে সামান্য একটু ঝামেলা হইছিল পরে আমরা এখানকার চেয়ারম্যানকে জানালে তিনি বিষয়টি শুনে সাথে, সাথে আমাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেন। এবং তিনি প্রতিদিন নিজে এসে খোঁজ খবর নিয়ে যাচ্ছেন। এবিষয়ে উলাশী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আয়নাল হক এ প্রতিনিধিকে বলেন,শ্যামনগর থেকে আমার এলাকায় আসা মৌচাষিরা তাদের নিরাপত্তার জন্য আমাকে বলেছেন। যেহেতু তারা বাইরে থেকে আমার এলাকায় এসেছেন সে জন্য তাদের যান- মালের যাতে কোন সমস্যা না হয় সেজন্য আমি নিজে সেখানে গিয়ে খোজ খবর নিচ্ছি এবং তারা যে কয়দিন থাকবে আমার দায়িত্বে তাদের দেখা শোনা করবো। তিনি আরো বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন কৃষি কাজেও রাখছেন ব্যাপক ভূমিকা। তাই আমিও কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দেশটাকে উন্নয়নশীল করার অংশিদার হতে চাই।

error: লাল সবুজের কথা !!