নজিবুল্লাহ-রশিদ ঝলকে আফগানদের সংগ্রহ ২০৭

শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুর্বল আফগানিস্তানের দুর্দান্ত ব্যাটিং। ইনিংসের শুরুতে ৭৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে চরম বিপদে পড়ে যায় আফগানিস্তান। তবে নজিবুল্লাহ জাদরান, রহমত শাহ, গুলবাদিন নাইব ও রশিদ খানের ব্যাটিং ঝলকে শেষ পর্যন্ত ৩৮.২ ওভারে ২০৭ রান তুলতে সক্ষম হয় আফগানরা।

শনিবার বিশ্বকাপের চতুর্থ ম্যাচে ইংল্যান্ডের ব্রিস্টলের কাউন্টি গ্রাউন্ডে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করে আফগানিস্তান। আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ইনিংসের প্রথম ওভারে মিসেল স্টার্কের বলে স্ট্যাম্প ভেঙে যায় আফগান সেরা ওপেনার মোহাম্মদ শেহজাদের। ঠিক পরের ওভারে পেট কামিন্সের বলে ক্যাচ তুলে দেন অন্য ওপেনার হযরতউল্লাহ জাজাই।

তৃতীয় উইকেট জুটিতে হাশমতউল্লাহ শহীদিকে সঙ্গে নিয়ে ৫১ রানের জুটি গড়েন রহমত শাহ। ৩৪ বলে মাত্র ১৮ রান করে ফেরেন হাশমতউল্লাহ। এরপর সময়ের ব্যবধানে উইকেট হারায় আফগানরা।

দলীয় ৭৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে যাওয়া দলকে গর্ত থেকে টেনে তুলেন নজিবুল্লাহ জাদরান ও অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব। ষষ্ঠ উইকেটে তারা ৮৩ রানের জুটি গড়েন। ৩৩ বলে ৩১ রান করে ফেরেন নাইব।

ইনিংসের ২৯তম ওভারে অস্ট্রেলিয়ান লেগ স্পিনার অ্যাডাম জাম্পাকে একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকান নজিবুল্লাহ জাদরান। ওই ওভারে দুই ছক্কা ২টি চার ও দুই সিঙ্গেল মিলে ২২ রান আদায় করে নেন আফগান এ অলরাউন্ডার।

ফিফটি তুলে নেয়ার পর নিজের ইনিংসটা লম্বা করতে পারেননি নজিবুল্লাহ। তিনি ৪৯ বলে ৭টি চার ও দুটি ছক্কায় ৫১ রান করে আউট হন।

নজিবুল্লাহ-নাইবের বিদায়ের পর ইনিংসের শেষ দিকে ব্যাটিং তাণ্ডব চালান আফগানিস্তানের লেগ স্পিনার রশিদ খান। আট নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নেমে মাত্র ১১ বলে ৩টি ছক্কা ও দুটি চারের সাহায্যে ২৭ রান করেন।

ইনিংসের ৩৬তম ওভারে মার্কু স্টইনিসকে একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকান রশিদ খান। ওই ওভারে ২টি ছক্কা ও দুই চারের সাহায্যে ২১ রান আদায় করে নেন রশিদ। তার হার্ডহিটিং ব্যাটিংয়ে ২০৭ রান তুলতে সক্ষম হয় আফগানিস্তান।

আফগানিস্তান: ৩৮.২ ওভারে ২০৭/১০ (নজিবুল্লাহ ৫১, রহমত শাহ ৪৩, গুলবাদিন নাইব ৩১, রশিদ খান ২৭, হাশমতউল্লাহ ১৮; পেট কামিন্স ৩/৪০, অ্যাডাম জাম্পা ৩/৬০)।

error: লাল সবুজের কথা !!