সর্বশেষ সংবাদ

জীবনের শেষ রক্তবৃন্দ দিয়ে হলে ও ঝিনাইদহের ডিঙ্গিমারা খাল খনন বন্ধ করা হবে

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: জীবনের শেষ রক্ত বৃন্দ দিয়ে ঝিনাইদহের ডিঙ্গি মারা খাল খনন বন্ধ করতে হবে বলে ঘোষণা করে ঝিনাইদহে ডিঙ্গিমারা খাল খনন প্রতিরোধ কমিটি। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় ঝিনাইদহ হামদহ কাঞ্চন পুরে ডিঙ্গিমারা খাল খনন প্রতিরোধ কমিটি আহ্বায়ক প্রফুল্য কুমার সরকারের সভাপতিত্বে খাল খনন প্রতিরোধ কমিটির এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশ বক্তব্য রাখে ঝিনাইদহ জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারন সম্পাদক অরুন কুমার ঘোষ, ঝিনাইদহ জেলা যুবলীগের সাবেক সহ সভাপতি শরিফুল ইসলাম তোতা, আব্দুল কুদ্দুস মিয়া, রজব আলী প্রমুখ।

সমাবেশে শুরুতে সমাবেশের সভা পরিচালনা কারী শাহিনুর রহমান সন্টু সমাবেশে আগত সকল কে জানায় যে ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক ঝিনাইদহ শহরের উপর দিয়ে প্রায় ৭৩ ফুট প্রসস্ত দুই পাশের পাড় সহ ১২০ ফুট কোথাও তার অধিক প্রসস্ত খাল খনন প্রকল্প হাতে নিয়েছে। যাহা জানার পর আমরা এলাকাবাসী জেলা প্রশাসকের নিকট গেলে মানচিত্রে ডিঙ্গিমারা খালের কোন অস্তিত্ব দেখাতে পারেনি। অথচ জেলা প্রশাসক ডিঙ্গিমারা খাল খননের জন্য একটি প্রকল্প পাঠিয়ে দিয়েছে। যে জাইগা দিয়ে খাল খননের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে তাহা এই অঞ্চলের মালিকানা জমি। এই জমি ১৯২৬ সাল থেকে বিভিন্ন ব্যাক্তির নামে রেকর্ড আছে। সে আরো বলে যে আমরা জানতে পেরেছি যে এই প্রকল্পে ব্যাক্তি মালিকানাধীন রেকর্ড সম্পত্তি অধিগ্রহণ লাগবে না বলে প্রকল্পে সুপারিশ করা হয়েছে। যাহা সরকারের যে কোন প্রকল্প বাস্তবায়ন নীতি মালার পরিপন্থী।

সমাবেশ প্রফুল্য কুমার সরকার জানায় যে খাস জমি দেখিয়ে এই খাল খনন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে ঝিনাইদহ শহর সহ কয়েকটি গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়বে। ঝিনাইদহ শহরের গুরুত্ব পূর্ণ আবাসিক অঞ্চল হল ঝিনাইদহ কাঞ্চনপুর, হামদহ, পাগলা কানাই, লক্ষ্মীপুর শিকার পুর। যেখানে হাজার হাজার মানুষের বসবাস। এখানে এক তলা থেকে শুরু করে ৪/৫ তলা পযুন্ত বিল্ডিং আছে। অনেকে তার সারা জীবনের অর্জন দিয়ে এখানে বাড়ি বানিয়ে বসবাস করছে। সরকার কোন ভাবেই এই মানুষকে পথে বসিয়ে খান খনন করতে পারে না। এখানে খাল খনন হলে ঝিনাইদহের একটি স্বার্থনেশী মহল খাল খননের নামে কোটি কোটি টাকা লুটপাট করতে পারেব।

অরুন কুমার ঘোষ বলে যে এই জমি সাধারন মানুষের। যে কোন মুল্যে এই জমির উপর দিয়ে খান খনন করতে দেওয়া হবে না। প্রয়োজনে জীবনের শেষ রক্ত বৃন্দ দিয়ে আমরা এই খান খনন প্রতিরোধ করব। এই মর্মে সকলকে ঐক্য বন্ধ থাকার আহবান জানায়ে বলে যে ঢাকার অদূরে মুন্সীগঞ্জে সরকার বিমান বন্দর তৈরি করতে গেলে জনগণের আন্দোলনের মুখে সে পরিকল্পনা বাতিল করেছে। এই খাল খনন বন্ধে আমাদের তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

এই সমাবেশে ঝিনাইদহ শহরের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত প্রায় ৫ শত পরিবারের ভুক্তভোগী গন উপস্থিত ছিল।

error: লাল সবুজের কথা !!