হরিণ শিকার বন্ধ কর, বণ্যপ্রাণী রক্ষা কর, সুন্দরবন বাঁচাও’

22

ষ্টাফ রিপোর্টারঃ হরিণ শিকার বন্ধ কর, বণ্যপ্রাণী রক্ষা কর, সুন্দরবন বাঁচাও’ শ্লোগানে” সুন্দরবনের কুখ্যাত হরিণ শিকারী, সুন্দরবন ও জীববৈচিত্র ধ্বংসকারী সাত্তার মোড়লের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সাতক্ষীরা সচেতন নাগরিক সমাজের আয়োজনে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন, মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ সুভাষ সরকার। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এড. আবুল কালাম আজাদ, সাতক্ষীরা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের আহবায়ক এড. ফাহিমুল হক কিসলু, জেএসডির জেলা সাধারণ সম্পাদক সুধাংশু শেখর সরকার, জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক শেখ ওবায়েদুস সুলতান বাবলু, ডেইলি সাতক্ষীরা’র সম্পাদক হাফিজুর রহমান মাসুম, সাতক্ষীরা পৌর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রাশি, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অহিদুজ্জামান টিটু, আ’লীগ নেতা সবুর খান প্রমুখ। মানববন্ধন পরিচালনা করেন, গণফোরাম সাতক্ষীরা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক আলীনুর খান বাবুল।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, সাত্তার মোড়ল তালিকাভুক্ত চিহ্নিত হরিণ শিকারি। বাংলাদেশে যে পরিমান হরিণ শিকার করেছে তার অর্ধেক হরিণ শিকার করেছে সাত্তার মোড়ল নিজে। অথচ অজানা কারণে এতদিন পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।
সাত্তার মোড়ল সুন্দরবন থেকে শুধু হরিণ শিকার নয়, বাঘ পাচারের সাথেও জড়িত। সুন্দরবনের গাছপালা কেটে উজাড় করে লক্ষ লক্ষ টাকার মালিক হয়েছেন। আর তার এ অবৈধ অর্থ ও সুন্দরবনের হরিণের মাংস বিভিন্ন দপ্তরে পাঠিয়ে সে বহাল তবিয়ত রয়েছেন।
বক্তারা আরো বলেন, গত ৯ জুলাই সুন্দরবনের দোবেকী নামকস্থান পুলিশের একটি টহল দল সেখানে অভিযান চালায়।

এ সময় সেখান থেকে ৩টি জবাই করা হরিণ, ৩টি একনালা বন্দুক ও একটি নৌকাসহ দুই চোরাশিকারী মঞ্জু ও মহিবুল্লাহকে আটক করা হয়। সে সময় সাত্তার মোড়ল ঘটনা স্থলে ছিলেন বলে গোপন সূত্রে আমরা জানতে পেরেছি। কিন্তু তাকে গ্রেফতার করা হয়নি। তবে এঘটনায় ওইদিন সন্ধ্যায় সাত্তার মোড়লকে আসামী করে ৩ জনের নামে মামলা রেকর্ড করা হয়।

দীর্ঘদিন পরে জীব বৈচিত্র ধ্বংসকারী কুখ্যাত হরিণ শিকারি সাত্তার মোড়লের বিরুদ্ধে মামলা রেকর্ড করায় বর্তমান সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ জেলা পুলিশকে ধন্যবাদ জানান এবং অবিলম্বে সাত্তার মোড়ল কে আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যে গ্রেফতার দাবী করেন।