সিরাজগঞ্জে শেখ রাসেলের জন্মদিবস পালিত

63
সিরাজগঞ্জে শেখ রাসেলের জন্মদিবস পালিত
সিরাজগঞ্জে শেখ রাসেলের জন্মদিবস পালিত

নাজমুল হাসান অনিক,কামারখন্দ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ প্রত্যেক বছরের মতো এবছরেও সারাদেশে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৪ তম জন্মবার্ষিকী পালন কররা হয়।

তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ শিশু একাডেমি, সিরাজগঞ্জ কর্তৃক শেখ রাসেলের জন্মবার্ষিকী নানা আয়োজনে পালন করা হয়। বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের নিয়ে চিত্রাংকন প্রতিযোগীতা, রচনা এবং কবিতা আবৃতির আয়োজন করা হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথী ছিলেন সিরাজগঞ্জ জেলার মধ্যমনি জনাব, কামরুন নাহার সিদ্দীকা। বিশেষ কারণে তিনি উপস্থিত হতে পারেনি। তার অনুপস্থিতিতে প্রধান অতিথীর দায়িত্ব পালন করেন জেলা শিশু কর্মকর্তা জনাব মোস্তফা কামাল রুদ্র। বিশেষ অতিথী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় শিশু সংস্থা ন্যাশনাল চিলড্রেন টাস্ক ফোর্স (এনসিটিএফ) এর সভাপতি দ্বীন মোহাম্মাদ সাব্বির। এছাড়াও এনসিটিএফ কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সিরাজগঞ্জে শেখ রাসেলের জন্মদিবস পালিত

অত্র অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন সিরাজগঞ্জ জেলার বিশিষ্ট সাংবাদিক জনাব মো: হেলাল উদ্দিন। তিনি জানান, শেখ রাসেল যদি বেচে থাকতেন তাহলে তিনিও বাংলাদেশের হাল ধরতেন। জাতির পিতার মতো করে সেও বাংলাদেশ কে ভালোবাসতেন এবং দেশের জন্য মঙ্গলময় কিছু করতেন।

জেলা শিশু কর্মকর্তা মোস্তফা কামাল রুদ্র জানান, বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের স্মৃতি মনে রাখার জন্যই প্রতিবছর শিশু একাডেমীতে তার জন্মদিবস কে কেন্দ্র করে বিভিন্ন প্রোগ্রাম করা হয়। প্রতি বছর আমাদের এই উদ্দ্যেগ অব্যাহত থাকবে।

এনসিটিএফ এর সভাপতি দ্বীন মোহাম্মাদ সাব্বির জানান, একটি শিশু মানে একটি সম্ভাবনা। ঠিক তেমনই শেখ রাসেল আমাতের দেশের একটি সম্ভাবনা। কিন্তু ঘাতকদের হাতে দেশের একটি সম্ভাবনা শেষ হয়ে গেছে। ধিক্কার জানাই সেইসব ঘাতকদের।

উক্ত অনুষ্ঠানটি মূলত সিরাজগঞ্জের বিভিন্ন পর্যায়ের বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের নিয়েই শেখ রাসেলের ৫৪ তম জন্মবার্ষিকী পালন করা হয়। যা সকলের কাছে অনেক বেশি অংশগ্রহণমূলক ছিল। তাদের এই অংশগ্রহণে অনেক বেশি আকর্ষনীয় হয়ে উঠেছিল দিনটি। শেখ রাসেলের জন্মিদিন যতটা ছিল আনন্দের, ঠিক ততটাই ছিল বেদনাদায়ক।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে চিত্রাংকন প্রতিযোগীতা, রচনা প্রতিযোগীতা এবং কবিতা আবৃতিতে অংশগ্রহণকারী শিশুদের মধ্য থেকে ১ম, ২য় এবং ৩য় স্থান অর্জনকারীদের শেখ রাসেলের স্মৃতি বিজরীত বই পুরষ্কার দেওয়া হয়। আর বাকি সবাইকে শান্তনা পুরষ্কার দেওয়া হয়। সর্বশেষ বিশিষ্ট অতিথীদের উপস্থিতে জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা জাতীয় শিশু সংস্থা ন্যাশনাল চিলড্রেন টাস্ক ফোর্স (এনসিটিএফ) এর কার্যনির্বাহী কমিটির নিকট পরিচয়পত্র প্রদান করার মধ্য দিডে অনুষ্ঠানের সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়।