সাতক্ষীরায় টিএসঅাই মিন্টু মিয়ার স্বেচ্ছাচারিতায় মটরসাইকেল চালকের নামে মামলা

21

ভুক্তভোগীর অভিযোগ সবকিছু থাকা সত্ত্বেও হয়রানি

মোঃ জাবের হোসেন:

ট্রাফিক আইন মেনে চলুন, ট্রাফিক পুলিশকে সহযোগিতা করুন; ট্রাফিক শৃঙ্খলা একটি জাতির সভ্যতার প্রতীক’ স্লোগান নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে রবিবার (৫ আগস্ট) থেকে ট্রাফিক সপ্তাহ শুরু হয়েছে।অার এরই মধ্যে কিছু অসৎ অফিসার ফায়দা নেয়ার চেষ্টা করছে।

সদর ট্রাফিক সার্জেন্ট টিএসঅাই শেখ মিন্টু মিয়া ক্ষমতার অপব্যাবহার করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।গতকাল (৭ই অাগষ্ট) মঙ্গলবার শহরের নিউ মার্কেটের সামনে লাবনী মোড়ে সপ্তাহ ব্যাপি ট্রাফিক পুলিশ উপলক্ষে টিএসঅাই মিন্টু মিয়া সহ সার্জেন্টের একটি দল গাড়ির সঠিক কাগজপত্র দেখার জন্য রাস্তায় নামে।

এসময় গাড়ির সঠিক কাগজপত্র থাকলেও মামলা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন এক ভুক্তভোগী। ভুক্তভোগী জহুরুল ইসলাম জানান,তিনি একটি বে-সরকারী প্রতিষ্টানে চাকরি করেন।অফিস শেষ করে বাসায় ফেরার পথে সাতক্ষীরা শহরের লাবনী মোড়ে ব্যক্তিগত কাজ থাকায় লাবনী মোড়ে দোকানের সামনে দাঁড়ানোর জন্য অাগে থেকেই সিগন্যাল দিয়ে অাসছিলেন জর্জ কোর্ট থেকে অাসামূখী ভুক্তভোগী। এসময় টিএসঅাই মিন্টু মিয়া তাকে থামতে বলেন।যদিও তিনি (জহুরুল ইসলাম) অাগে থেকেই দোকানে ব্যক্তিগত প্রয়োজনের জন্য গাড়ি থামান।এ সময় মাথায় থাকা হেলমেট’টি জহুরুল ইসলাম মটরসাইকেলে ঝুলিয়ে রেখে গাড়ি থেকে নেমে অাসেন গাড়ির কাগজ দেখানোর জন্য ।মিন্টু মিয়া যখন গাড়ির কাগজ দেখছিলেন তখন পাশ থেকে একজন সার্জেন্ট তাকে বলেছেন স্যার উনার (জহুরুল ইসলাম) এর মাথায় হেলমেট নেই।

এ সময় গাড়ির কাগজপত্র সব ঠিক থাকলেও তার নামে হেলমেটের একটি মামলা দেন পিএসঅাই মিন্টু মিয়া।

ভুক্তভোগী জহুরুল ইসলাম জানান,তার মাথায় হেলমেট ছিলো, কিন্তু গাড়ি বন্ধ করে গাড়ি থেকে নামার সময় তিনি হেলমেট খুলে গাড়িতে ঝুলিয়ে রাখেন।অার এতেই তার নামে মামলা জুড়ে দেন টিএসঅাই মিন্টু মিয়া।ভুক্তভোগী জহুরুল ইসলাম জানান টিএসঅাই মিন্টু মিয়া নিজের স্বেচ্ছাচারিতায় তার নামে মামলা দিয়েছেন।

এ বিষয়ে টিএসঅাই মিন্টু মিয়ার ব্যবহৃত মোবাইল (০১৭৪০৯৮৬৬৫০) নাম্বারে ফোন দিলে তিনি জানান,সপ্তাহব্যাপী ট্রাফিক সপ্তাহ উপলক্ষে তারা লাবনী মোড়ে গাড়ির বৈধ কাগজপত্র এবং সঠিকভাবে চালকদের সবকিছু অাছে কি না দেখার জন্য গতকাল বিকালে সেখানে অবস্থান নেন।তার কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, জহুরুল ইসলামের নামে মামলা দেওয়া হয়েছে কাছে হেলমেট না থাকায়।এসময় এই প্রতিবেদক টিএসঅাই মিন্টু মিয়াকে বলেন জহুরুল ইসলামের কাছে হেলমেট ছিলো কিন্তু দোকানে নিজের ব্যক্তিগত প্রয়োজনে এবং অাপনাদের দাঁড়াতে বলায় জহুরুল ইসলাম মাথা থেকে হেলমেট খুলে গাড়িতে ঝুলিয়ে নিচে নেমে অাসেন।এ সময় টিএসঅাই মিন্টু মিয়া বলেন,দেখেন অামাদের উপর থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়, প্রতিদিন নিদৃষ্ট করে দেওয়া হয় কয়টা করে মামলা দিতে হবে।এসময় মিন্টু মিয়া বলেন,অামাদেরও তো চাকরি বাঁচাতে হবে।এজন্য মামলা দেয়া হয়েছে।

এ সময় টিএসঅাই মিন্টু মিয়াকে বলা হয় নির্দেশ দেওয়া হয় বলে কি অাপনারা অবৈধভাবে মামলা দেবেন?

তখন টিএসঅাই মিন্টু মিয়া উক্ত প্রতিবেদক’কে বলেন মামলা দেয়ার সময় জহুরুল ইসলাম তো রেফারেন্সের কথা বললে হতো।তাহলে অার মামলা দিতাম না।

ভুক্তভোগী জহুরুল ইসলাম পাশে থাকা লোকদের সাথে কথা বলে জানেন,টিএসঅাই মিন্টু মিয়া ক্ষমতার অপব্যবহার করছেন।মিন্টু মিয়া কাগজপত্র সহ অন্যান্য জিনিস থাকা সত্বেও অবৈধভাবে অনেকের নামে এভাবে না কি মামলা দিয়েছেন।ভুক্তভোগী জহুরুল ইসলাম টিএসঅাই মিন্টু মিয়ার স্বেচ্ছাচারিতা বন্ধের জন্য কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।

উল্লেখ পিএসঅাই শেখ মিন্টু মিয়ার অাইডি নং বিপি- ৬০৮১০৯৬৮১৬,তার গ্রামের বাড়ি নড়াইল জেলায়।তিনি সাতক্ষীরা ট্রাফিক সার্জেন্টে টিএসঅাই হিসাবে বর্তমানে কর্মরত অাছেন।