সর্বশেষ সংবাদ

শেষ মুহূর্তে চমক থাকছে সাতক্ষীরা সংরক্ষিত এমপি আসনে : সেঁজুতি হতে পারেন এমপি!

সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার : জাতীয় নির্বাচন হয়েছে ডিসেম্বরের ৩০ তারিখে। জাতীয় নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ার পর মন্ত্রিসভা গঠন। এরপর শুরু হয় সংরক্ষিত মহিলা আসন নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা।

মূলত বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসন সরাসরি নির্বাচন হয়। ৫০টা আসন থাকে মহিলাদের জন্য সংরক্ষিত। নিজের রাজনৈতিক কর্মদক্ষতা, জনগণের সাথে সম্পৃক্ততা ইত্যাদির উপর নির্ভর করে প্রধানমন্ত্রী এবং বিরোধীদলীয় নেতারা নির্ধারণ করেন বাকি ৫০ টি আসন।

এবার ৩০০ টি আসনের বিপরীতে সরকারদলীয় আওয়ামী লীগ মহিলা প্রার্থী দেবে ৪৩ টি এবং জাতীয় পার্টি, বিএনপি সহ আরও ৭টি আসনে সংরক্ষিত মহিলা এমপি প্রার্থী দিবে।প্রতি ছয়টি নির্বাচিত আসন নিয়ে ১ টি সংরক্ষিত মহিলা আসন।সাতক্ষীরা আসনটি সংরক্ষিত-৩১২ আসনে অন্তর্ভুক্ত।

বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে দুই-একদিনের মধ্যে সাতক্ষীরা আসনটিতে কে হচ্ছেন সংরক্ষিত মহিলা এমপি সেটা নির্ধারণ করা হতে পারে।

এবার যে কয়েকজন প্রার্থী সাতক্ষীরায় সংরক্ষিত মহিলা এমপি হওয়ার জন্য জোরেশোরে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার মধ্যে সবথেকে বেশি এগিয়ে আছেন সাবেক প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ স.ম আলাউদ্দিন কন্যা লায়লা পারভীন সেঁজুতি।

লায়লা পারভীন সেঁজুতি বর্তমানে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। শিক্ষকতা করছেন (প্রধান শিক্ষক) বঙ্গবন্ধু পেশাভিত্তিক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে। এছাড়াও তিনি সাতক্ষীরার পাঠকনন্দিত পত্রিকা দৈনিক পত্রদূত এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক। জড়িয়ে আছেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড এর সাথে।সাতক্ষীরায় যুব শ্রেণির মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। বর্তমানে তিনি সাতক্ষীরা জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সদস্য সচিব।

ইতিমধ্যে তিনি সাতক্ষীরার প্রতিটি অঞ্চলের মানুষের মনিকোঠায় জায়গা করে নিয়েছেন। জনগণের সাথে সম্পৃক্ততা কিভাবে বাড়াতে হয় সেটা তিনি শিখেছেন বাবার কাছ থেকে।

কবে থেকে তার রাজনীতিতে আসা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন বাবা শহীদ স.ম আলাউদ্দিন ছিলেন আধুনিক সাতক্ষীরার স্বপ্নদ্রষ্টা। তিনি সাতক্ষীরাকে একটি আধুনিক ও উন্নত জেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ১৯৯৬ সালে ঘাতকের বুলেটের আঘাতে তিনি মৃত্যুবরণ করেন নিজ পত্রিকা অফিসে। বাবার মৃত্যুর পর তার পরিবারে নেমে আসে শোকের ছায়া। শোককে শক্তিতে পরিণত করে সেই থেকে তার রাজনীতিতে পথ চলা। তিনি শিখেছেন জনগণের জন্য কিভাবে কাজ করতে হয়। বাবার কাছ থেকে জেনেছেন জনগণের কল্যাণে কিভাবে কাজ করতে হয়। তাইতো বাবার মৃত্যুর পর বাবার অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করার লক্ষ্যে রাজনীতিতে সক্রিয় হন লায়লা পারভীন সেঁজুতি।

সাতক্ষীরায় নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় তিনি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন প্রতিটি গ্রামে- গঞ্জে -হাটে বাজারে সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ততার সাথে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। আর এজন্যই সাতক্ষীরাবাসীর প্রাণের দাবি আগামীকাল সাতক্ষীরা সংরক্ষিত মহিলা আসনে নাম ঘোষণা হতে পারে লায়লা পারভীন সেঁজুতির।এছাড়া দলীয় বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে যে কজন প্রার্থী এবারের সংরক্ষিত মহিলা আসনে এমপি হওয়ার জন্য জোরেশোরে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন তার মধ্যে সবথেকে বেশি এগিয়ে লায়লা পারভীন সেঁজুতি। জানা গেছে এবারের সংরক্ষিত মহিলা আসনে কয়েকটি কম্পনেন্টে ভাগ করা হয়েছে। সেই কম্পোনেন্ট গুলোর মধ্যে সবথেকে বেশি এগিয়ে লায়লা পারভীন সেঁজুতি।

সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা লায়লা পারভীন সেঁজুতি সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি হলে তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে আরো বেশি অগ্রসর হতে পারবেন। সেই সাথে বাবা শহীদ স.ম আলাউদ্দিনের অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করার লক্ষ্যে আরও একধাপ এগিয়ে যেতে পারবেন। সহজেই কাজগুলো করতে পারবেন। তাই এবারের সংরক্ষিত মহিলা আসনে শহীদ স.ম আলাউদ্দিন পরিবারের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানিয়ে সাতক্ষীরার ২২ লক্ষ মানুষের জন্য কাজ করার লক্ষ্যে লায়লা পারভীন সেঁজুতিকে মনোনয়ন দিয়ে জনগণের প্রত্যাশা পূরণে সম্পৃক্ত হবে দল।

error: লাল সবুজের কথা !!