সর্বশেষ সংবাদ

যেভাবে নকল ঔষধ চিনবেন

সাধারণ ডাক্তারকে দেখাতে বা ঔষধ কিনতে খুব বেশি হিসাব কেউ কষে না। সুস্থ থাকার জন্য একজন চিকিৎসকের প্রতি রয়েছে যে কোনো ব্যক্তির অঢেল বিশ্বাস। এ ছাড়া কোনো ফার্মেসিতে ঔষধ কিনতে গেলেও আমরা খুব বেশি গড়িমসি করি না। আর এখানেই ঘটছে বিপত্তি।

বাজারে আসল ওষুধের ভিড়ে রয়েছে নকল ঔষধ, যা আপনার প্রাণনাশ থেকে শুরু বড় ধরনের বিপত্তির কারণ হতে পারে। তাই আসল ঔষধ চেনা জরুরি।

আসুন জেনে নিই কীভাবে চিনবেন আসল ওষুধ-

ঔষধের মোড়ক

ওষুধ কেনার আগে প্রথমেই (বিশেষ করে বোতলজাত ঔষধের ক্ষেত্রে) দেখে নিন সিলের কোথাও কোনো সমস্যা আছে কিনা। ঔষধের ক্ষেত্রে প্যাকেজিং দেখে নিতে হবে। বানান, রং, আগে যদি সেই ঔষধ কিনে থাকেন, তার সঙ্গে মোড়কটি মিলিয়ে নিতে হবে কোনো সংশয় হলেই।

মেয়াদোত্তীর্ণ

ওষুধ কেনার সময় সবচেয়ে বেশির নজর দিতে হবে ঔষধের মেয়াদের দিকে। কারণ মেয়াদোত্তীর্ণ ঔষধ হতে পারে মৃত্যুর কারণ।

ভাঙা অংশ

ঔষধের কোথাও কোনো ভাঙা অংশ রয়েছে কিনা, গুঁড়ো ঔষধ হলে, অতিরিক্ত পরিমাণে দেয়া রয়েছে কিনা-সেগুলো মিলিয়ে নিতে হবে পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে।

ক্রিস্টাল

ঔষুধটি ক্রিস্টালের (কেলাসাকার) মতো হলে, সে ক্ষেত্রে আগের কেনা ঔষুধের মতোই কঠিন বা নরম কিনা, কোথাও ফোলা অংশ বা দাগ রয়েছে কিনা-এগুলোও খতিয়ে দেখে নেয়া প্রয়োজন।

দাম হেরফের

ঔষুধের দাম অসম্ভব বেশি বা কম হলে সে ক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া জরুরি। ঔষুধ ক্ষতিকারক বা জাল কিনা, না অন্য কোনো কারণে দাম বেড়েছে বা কমেছে কিনা, তা দেখতে হবে। কারণ ভেজাল ঔষুধেই সবচেয়ে বেশি দামের হেরফের হয়।

চিকিৎসকের পরামর্শ

ঔষুধ খাওয়ার পর আচমকা শরীর খারাপ হলে বা অ্যালার্জি হলে বা কোনো রকম অসুবিধা হলে প্রথমেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। প্রয়োজনে সেই ঔষুধ খাওয়া বন্ধ করুন।

error: লাল সবুজের কথা !!