সর্বশেষ সংবাদ

মারল কারা, তদন্ত করবে কারা: প্রশ্ন ছাত্রলীগ নেত্রীর

ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে তাদের দুই গ্রুপের মারামারির ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। কমিটিকে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

এদিকে সোমবার সন্ধ্যার এই হামলার ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন আহত এক নেত্রী। এসময় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে তদন্ত নাটক বাদ দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন রোকেয়া হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি বিএম লিপি আক্তার।

মঙ্গলবার (১৪ মে) সকাল সকাল ১১টার দিকে নিজের ফেসবুকে বিএম লিপি আক্তার লিখেছেন, ‘নাটক বাদ দিন, আপনাদের নাটক কেউ দেখতে চায় না। মারল কারা আর তদন্ত করবে কারা? মারার নির্দেশ দিছে কারা, তদন্তের নির্দেশ দিছে কারা?’

তিনি লেখেন, ‘ভণ্ডামি বাদ দিয়ে, যারা বিগত ৮/৯ মাস আপনাদের চামচামি করছে, যাদের কেউ চিনে না, জীবনের প্রথম পোস্ট তাও আবার Join secretary, Vice, OS এবং সম্পাদক দিছেন এই কমিটি ভেঙে যোগ্য, সাংগঠনিক দক্ষ লোক যারা বিগত দিনে রাজপথে ছিল, তাদের দিয়ে কমিটি করুন। নয়তো খুব খারাপ সময় পার করতে হবে আপনাদের।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১১-১২ মে ছাত্রলীগের ২৯তম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের আড়াই মাস পর ৩১ জুলাই সংগঠনটির শীর্ষ দুই নেতার নাম প্রকাশ করা হয়। এর প্রায় ১০ মাস পর গতকাল সোমবার বিকেলে ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। এদিকে ঘোষিত কমিটিকে বিতর্কিত আখ্যা দিয়ে গতকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করে সাবেক কমিটির পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা।

এরপরে সন্ধ্যায় তারা মিছিল বের করলে তাতে পদপ্রাপ্ত নেতারা হামলা চালানোর অভিযোগ উঠে। এ ঘটনার পর মধুর ক্যান্টিনে পদবঞ্চিতদের সংবাদ সম্মেলনেও তারা হামলা চালায় বলে জানা গেছে। এর এক পর্যায়ে দুই পক্ষ মারামারিতে জড়িয়ে পড়ে। এতে কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘১৩ মে (গতকাল) ইফতারের পরবর্তী সময়ে মধুর ক্যান্টিনে যে অনাকাঙ্খিত ও অপ্রীতিকর ঘটনা সংগঠিত হয়েছ, আমরা ছাত্রলীগ পরিবার তার তীব্র নিন্দা জানাই। সেই সাথে উক্ত ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির লক্ষ্যে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হলো।’

তদন্ত কমিটিকে আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে সরেজমিনে অনুসন্ধান করে তথ্য উপাত্তসহ প্রতিবেদন দপ্তর সেলে জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন, ছাত্রলীগের নতুন কমিটির সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়, আইন বিষয়ক সম্পাদক ফুয়াদ হোসেন শাহাদাৎ ও তথ্য গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক পল্বব কুমার বর্মন।

error: লাল সবুজের কথা !!