বিএমডিএকে ভূল বুঝিয়ে অবৈধভাবে লাইসেন্স গ্রহণের অভিযোগের তদন্তের হলোনা কোনো ব্যবস্থা!

57

মাহবুবুজ্জামান সেতু,নওগাঁ প্রতিনিধিঃ নওগাঁর মান্দায় বিএমডিএ কর্তৃপক্ষকে ভ‚ল বুঝিয়ে অবৈধভাবে লাইসেন্স গ্রহণের অভিযোগে তদন্ত করার পর কয়েকদিন পেরিয়ে গেলেও কোন ব্যাবস্থা না নেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী। ঘটনাটি কাঁশোপাড়া ইউনিয়নের কৈবর্ত্যপাড়া গ্রামের।

জানাগেছে,গভীর নলক‚পের কমান্ড এরিয়ার ভেতরে অবৈধভাবে ১ জন ব্যক্তি ১ টি পৃথক অগভীর নলক‚প স্থাপন করায় তা বন্ধের আবেদন জানিয়েছেন মান্দা উপজেলার কৈবর্ত্যপাড়া গ্রামের মৃত আতোয়ার রহমানের ছেলে এবং গভীর নলক‚পের মালিক নেফাউর রহমান। উপজেলা বিএমডিএর সহকারী প্রকৌশলী ও উপজেলা সেচ কমিটির সদস্য সচিব বরাবরে করা আবেদন উপেক্ষা করে ক্ষমতার অপব্যাবহার দেখিয়ে একই গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে জহুরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি গভীর নলক‚পের ১৪শ ফুট দূরে আরো ১ টি অগভীর নলক‚প স্থাপন করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

লিখিত অভিাযোগে ভ‚ক্তভোগী নেফাউর রহমান জানান, উপজেলার ১২ নং কাঁশোপাড়া ইউপি’র কৈবর্ত্যপাড়া মৌজার ১০২৩ নং দাগের গভীর নলক‚পের কমান্ড এরিয়ার মধ্যে ৮৩৯ দাগে অবৈধভাবে একই গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে জহুরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি বিএমডিএ কর্তৃপক্ষকে ভ‚ল বুঝিয়ে অবৈধভাবে লাইসেন্স গ্রহণের পর গভীর নলক‚পের ১৪শ ফুট দূরে আরো ১ টি অগভীর নলক‚প স্থাপন করেছেন।

এ ব্যাপারে গত ৩ জানুয়ারি তিনি উপজেলা বিএমডিএর সহকারী প্রকৌশলী ও উপজেলা সেচ কমিটির সদস্য সচিব বরাবরে একটি আবেদন দাখিল করেন।

সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন দাখিলের ১২ দিন পর তদন্ত করে এখন পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় আবেদনকারী চরম হতাশায় ভূগছেন। তিনি গভীর নলক‚পের কমান্ড এরিয়ার ভেতরে বিএমডিএ কর্তৃপক্ষকে ভ‚ল বুঝিয়ে অবৈধভাবে লাইসেন্স গ্রহণের পর গভীর নলক‚পের ১৪শ ফুট দূরে আরো ১ টি অগভীর নলক‚প স্থাপন করায় তা বন্ধের জন্য সেচ কার্যক্রম পরিচালনা কমিটি এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

মান্দা উপজেলা বিএমডিএ কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বলেন, অভিযোগ পেয়ে গত সোমবার দুপুরে এসও কফিল উদ্দিন এবং ম্যাকানিক মহসীন আলীকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়ে তদন্ত করা হয়েছে। তদন্ত  প্রতিবেদন অনুযায়ী প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।