সর্বশেষ সংবাদ

পাটকেলঘাটার কৃষকরা ধান চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন

এস.এম মফিদুল ইসলাম, পাটকেলঘাটা প্রতিনিধি ॥ ধান লাগায়ি কি হবে, এর চায়ি কিনি খাব তবুও লোকসান গুণতি হবে না আমাগি মতোন কৃষকের-কথাগুলো বলছিলেন পাটকেলঘাটার থানার কুমিরা গ্রামের আব্দুস সালামের পুত্র ধানচাষি শহিদুল ইসলাম। অনেকটা অভিমানের সুরে নিজের অজান্তে কথা গুলো অকপটে বলেই চলেছিলেন একান্ত স্বাক্ষাৎকারে। তিনি আরো বলেন, ধান যদি আমরা না লাগাই তাহলি সরকারের তো বাইর দেশেত্তে আনতি হবে। আমাগির সরকার কি বোঝে না খরচের চায়ি যদি দাম কম পাই তালি ও লাগাবো কি করতি।

সরেজমিনে পাটকেলঘাটার কয়েকজন ধান ব্যবসায়ীর নিকট খোজ নিয়ে এমন কথার সত্যতা পাওয়া যায়। দেখা যায় এসকল ব্যবসায়ীগণ অনেককটা অনাগ্রহের সহিত ধান কিনছেন। বিশেষত মুদি, কাপড় সহ সমস্থ দোকানগুলোতে বৈশাখের শুরু হতে এক যোগে হালখাতার লগ্ন চলছে। সারাবছর বাকি করে কিনলে এখন সেগুলো পরিশোধ করা বাধ্যতা মুলক হয়ে দাড়িয়েছে সকলের।

তাই যার যা সম্বল গরু, ছাগল বিক্রি করেও অনেকে দেনা পরিশোধ করছেন বলে জানা যায়। অপরদিকে অধিকাংশ ধানচাষী কৃষকরা চেয়ে আছেন কষ্ট করে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে অর্জিত ধান ক্ষেতের দিকে। বছরের ভাত ঘরে তুলে বাকি ধানগুলো বিক্রি করে সকল দেনা পরিশোধ করে দেবেন। কার্যত দেখছেন ঝুকি নিয়ে ধানগাছ লাগানোর চেয়ে ধান কেনাই লাভবান বেশি। গতকাল বুধবার উপজেলার বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পাটকেলঘাটা বাজারে বেশিরভাগ কৃষকের ধান বিক্রি করতে এসে কপাল ভাজ হতে দেখা যায়।

তাদের এমন দশা লোকসান হলেও করার কিছুই নেই। ধান বিক্রি করে হালখাতার টাকা শোধ না করলে বাড়ি গিয়ে মান অপমান হতে পারেন। কয়েকজন ধান ব্যবসায়ীর সাথে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে সর্বোচ্চ সাড়ে ৭’শ দামে মণ দিচ্ছি। বাজার যদি চড়া না হয় সরকার যদি মাঠপর্যায়ে কৃষকের খোজ খবর না নেয় আমরা কি বা করতে পারি। অথচ মণ প্রতি ধান উৎপাদন করতে হাজারেরও বেশি অলিখিত খরচ হয়ে দাড়িয়েছে এতদাঞ্চলের কৃষকের।

চড়া দামে ধান বীজ কেনা, অনেকের চড়া দামে পাতা (ধানের চারা) কেনা অতপর শ্রমিক দিয়ে চারা লাগানো, পরিষ্কার করা, পানি খরচ, সার দেয়া, গাছগুলো কাটা, ঝাড়া পরিষ্কার শেষে ঘরে তোলা নেহায়েত কম শ্রম নয়। অথচ যা খেয়ে আমাদের জীবন বাচে, যা এদেশের কৃষকরা উৎপাদন না করলে সরকার সহ জনগণের মাথায় হাত উঠে যাবে তার দাম দর নিয়ে কারও কোনো মাথা ব্যথা নেই।

অনেকের ধানের দাম না পাওয়ায় ধানগাছে আগুন ধরিয়ে দিয়ে প্রতিবাদ জানানোর খবরও কানে আসছে। তাই সরকারের উচিত এদেশের কৃষকদের দিকে সুনজর দেয়া। আবারও যাতে কৃষকরা লাভের আশায় নতুন উজ্জীবিত হয়ে ধান পাট চাষে আগ্রহ তৈরী করতে পারে তার সুব্যবস্থার জন্য আহবান জানান এ অঞ্চলের সাধারণ কৃষককুল।

error: লাল সবুজের কথা !!