নারী পুলিশের শরীরে আগুন দিল বিক্ষোভকারীরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: চিলিতে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ চলছেই। তারমধ্যে আজ ঘটেছে মর্মান্তিক এক ঘটনা। বিক্ষোভকারীরা দুজন নারী পুলিশ সদস্যকে আগুনে ঝলসে দিয়েছেন। তারা এখন হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে এই খবর জানানো হয়েছে।

রয়টার্স বলছে, সোমবার তাদের এক চিত্রগ্রাহক চিলির রাজধানী সান্তিয়গোর কেন্দ্রে বিক্ষোভের ছবি তুলছিলেন। সেখান থেকে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করছিল পুলিশ। তারা কাঁদানে গ্যাস ছুড়ছিল। তখনই বিক্ষোভকারীরা ককটেল নিক্ষেপ করলে দুজন নারী পুলিশ সদস্যের গায়ে আগুন লাগে।

রয়টার্সের ওই চিত্রগ্রাহকের নাম জোর্গে সিলভা। তিনি মূলত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রধান চিত্রগ্রাহক। কিন্তু চিলির বিক্ষোভ কাভার করার জন্য তাকে সেখানে পাঠানো হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যার মর্মান্তিক ওই ঘটনার বর্ণনা তিনি নিজেই লিখে পাঠিয়েছেন রয়টার্সের সদর দফতরে।

জোর্গে সিলভা জানিয়েছেন, তিনি মধ্য সান্তিয়াগোর বাকুয়েদনো মেট্রো স্টেশনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। অগ্নিসংযোগের কারণে সেটি ছিল বন্ধ। পুলিশ সেখান থেকে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাস ও জলকামান ছোড়ারি মধ্যেই আগুনে ঝলসে যায় দুজন নারী পুলিশ সদস্য।

তিনি দেখেন ওই সময় বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে মলটোভ ককটেল ছুড়ে মারছে। সেই ককটেল থেকে ওই দুই নারী সদস্যের শরীরে আগুন লেগে যায়। তার সহকর্মীরা অগ্নিনির্বাপবক যন্ত্র ও হাত দিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করছেন। কিন্তু ততক্ষণে মারাত্মকভাবে ঝলসে গেছে তাদের শরীর।

পুলিশ বলছে, মারাত্মকভাবে দগ্ধ ওই নারী পুলিশ সদস্যরা হলেন ২৫ বছর বয়সী মারিয়া জোসে হার্নান্দেজ তোরেস এবং ২০ বছর বয়সী ক্যাতালিনা আবার্তো কার্ডেনাস। সান্তিয়াগো পুলিশের বিশেষ শাখার ওই দুই সদস্য এখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাদের বাঁচানো সম্ভব হবে কি না তা বলতে পারছে না চিকিৎসকরা।

error: লাল সবুজের কথা !!