টানা বৃষ্টিতে জনজীবন বিপর্যস্ত, চলবে শনিবার পর্যন্ত

237

অনলাইন ডেস্ক ।। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে দুদিন ধরে টানা বৃষ্টিতে জনজীবন বিপর্যয়ে পড়েছে। ব্যাঘাত ঘটছে চলাচলে। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘর থেকে বাইরে বের হচ্ছেন না। এই বৃষ্টি আগামীকাল শনিবার পর্যন্ত থাকবে বলে জানান আবহাওয়া অধিদপ্তর।

বৃহস্পতিবার থেকে বৃষ্টি শুরু হলে শুক্রবার সকাল থেকে এখন পর্যন্ত রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গুড়িগুড়ি বৃষ্টি পড়ছে।বৃষ্টির কারণে শারদীয় দূর্গা উৎসব পালনে অসুবিধায় পরেছে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। খেটে খাওয়া মানুষ ঘরের বাইরে কাজে যেতে পারছেন না।

দিনমজুরীর কাজ করেন রামপুরার বাসিন্দা আফতাব রহমান। তিনি বৃষ্টির কারণে বৃহস্পতিবার কাজের সন্ধ্যানে বের হতে পারেননি।

শুক্রবার সকালে গুড়িগুড়ি বৃষ্টিতে কাজের সন্ধ্যানে বাড়ি থেকে বের হলেও কাজ পাননি। দিন শেষে খালি হাতে বাসায় ফিরতে হবে আফতাবকে। একই কথা বলেন রংধনু বাসের ড্রাইভার আক্তারুজ্জামান ইলিয়াস।

তিনি বলেন, একদিকে শুক্রবার সরকারি ছুটির দিনে রাস্তায় যাত্রী কম বের হোন। এরসঙ্গে গতকাল থেকে একটানা বৃষ্টি পড়ায় মানুষ ঘর থেকে বের হতে পারছেন না বলেই বাসে যাত্রী কমেছে।

সরেজিমন রাজধানী ঘুরে দেখা গেছে, শুক্রবার ছুটির দিন হলেও রাজধানী শাহবাগ, যাত্রাবাড়ী, গুলিস্তান যানজট লেগে থাকলেও আজকে রাস্তাঘাট ছিল একেবারেই ফাঁকা। বাসে যাত্রী কম। রাস্তাঘাটে গণপরিবহনেও যাত্রী সংখ্যা ছিল খুবই অল্প। খুব বেশি প্রয়োজন ছাড়া মানুষ বাইরে বের হয়নি। বাজারেও তুলনামূলকভাবে ক্রেতার ভিড় ও বেচাকেনা কম ছিল।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের সহকারী আবহাওয়াবিদ আফরোজা সুলতানা জানান, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট গভীর নিম্নচাপের প্রভাবে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টিপাত হচ্ছে। বরিশালে ১১৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হলেও ঢাকায় ২৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। এই বৃষ্টি আগামীকাল শনিবার পর্যন্ত চলমান থাকবে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় ৪৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। একই সময়ে সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলায় ১৮৯ মিলিমিটার। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় কক্সবাজারে ১১৯, চট্টগ্রামে ১৪২, কুতুবদিয়ায় ১৬৬, সন্দীপে ১১০, সীতাকুণ্ডে ১১৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে কম বৃষ্টিপাত হয়েছে সিলেট বিভাগে মাত্র ১১ মিলিমিটার।