কে আগে?

53

মাহবুবুজ্জামান সেতু, নওগাঁ প্রতিনিধিঃ কে আগে? হারিয়ে যাওয়া মানুষটির কথা মনে পড়লে চোখের কোণে জল আসবেই। কিন্তু চোখের পানি লুকিয়ে হাসতে হয়। আজ না হয় ভিন্ন প্রসঙ্গে কথা বলে আপনাকে সাবধান এবং সতর্ক করি। ভালো লাগলে আপনার মনের ওপাশের শূন্যস্থানে রেখে দিয়েন।
না রাখলেও কথাটা শুরু করতে আর বোধহয় ভূমিকা নেয়ার প্রয়োজন নেই। প্রশ্নের উত্তর দিন – জীবনে সুন্দরভাবে বাঁচবার জন্য টাকা,মা-বাবা, প্রেমিক/প্রেমিকা, আত্মীয়ের মধ্য গুরুত্ব অনুসারে সকল ক্ষেত্রে কাকে ০১ নম্বরে রেখে ধারাবাহিকভাবে অন্যদের সাজাবেন ?

ক্লাস সেভেন পর্যন্ত পুতুল,কানামাছি, টেলিভিশনের কার্টুন ছবি…. মোটামুটি এগুলোই বেশী ইশরাত কায়ানিকে আকর্ষণ করতো। ক্লাস এইটে এসে প্রকৃতি তার শরীরের ভাঁজে ভাঁজে বিভিন্ন অঙ্গে বদল এনে দিলো। সেগুলোর সাথে মানিয়ে নিতে অনেকটা সময় তার লেগে যায়। ১৮ বছর পেরিয়ে গেলো।
মনো জগতের দিকে তাকিয়ে দেখে কতো ভাঙা গড়া চলছে,কিন্তু শব্দ নেই। এরই মধ্যে প্রকৃতি তার শরীরে এমন এক যাদুকর রেখে দিয়ে গেছে যার নাম বমম (ডিম্বাণু)। মূলতঃ এই কারণে সে বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আকর্ষণ অনুভব করে। এর আকর্ষণ ক্ষমতা প্রবল। ফলে ছেলে থেকে শুরু করে সকলেই তার প্রভাবে সক্রিয়।
কেউ মুখ ফুটে বলে দেয় আমি…। কেউ পারেনা। কাজেই প্রকৃতিকে দোষ প্রথমে দিন। তারপর পুরুষকে। যদিও পিতা পুরুষটি মাথার ছাতা, মা মেয়েটি আমাদের অলংকার এবং নিঃস্বার্থ কান্নার সাথী। আর উপযুক্ত প্রেমিক /বর/স্বামী পুরুষটি আপনার জীবনের সব,আপনার বেবীর অস্তিত্বের অর্ধেক, তাকে পাওয়া মানে স্বর্গের একটা সিঁড়ি খুঁজে পাওয়ার মতন।সে আপনার মা বাবা আত্মীয় সকলকে দুঃখ দেবে না।

জীবনটা হবে সুন্দর, চমৎকার। যথার্থ প্রেমিক প্রেমিকা স্বয়ং আল্লাহর প্রতিনিধি। যদিও তার আগমন পরে ঘটে। কাজেই প্রেমিক চিনে নিতে ভূল করলে পুরো ষরভব ঢ়ৎড়ভরষব শেষ,ধ্বংস,বরবাদ। সেখানে মা বাবার তেমন কিছু করার নেই। নিজ হাতে গড়া পুতুল যদি সুন্দর না হয় তাহলে সে দোষ কার প্রশ্ন রেখে গেলাম।
এখন কোনো ণড়ঁহম মেয়ে যদি ঢ়ৎবমহধহঃ হতে না চায় তাহলে তার পুরুষের দিকে আকৃষ্ট হওয়ার প্রয়োজন নেই। তা কি সম্ভব ! সম্ভব নয় প্রজনন তন্ত্রের কারণে। সে চুপচাপ বসে থাকবে না। সক্রিয় হয়ে উঠবে যে কোন সময়। এরপরেও কেউ যদি পুরুষ ছাড়া থাকতে চায় তাহলে তো খুব ভালো কথা। আমরা নতুন নতুন মাদার তেরেশা পেতেই থাকবো।

একজনকে প্রশ্ন করায় তিনি বললেন, “খেয়ে দেয়ে কাজ নেই আমার যে, আমি মাদার তেরেশা হবো ! আমি মা হতে চাই। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত আমি আমার পছন্দের পুরুষের সাথেই থাকতে চাই।” ফলে পঁঃব পঁঃব বেবী। ছোট ছোট ডাক। তুল তুলে নরম গাল। বেবী জন্ম নেয়ার পর একজন হয় মা আরেকজন হয় বাবা। মা আর বাবার মিলিত প্রচেষ্টায় শিশুদের বড় করে তোলে। প্রকৃতির চিরন্তন অমোঘ নিয়ম।

যে মোবাইলটি আমি ব্যবহার করছি তাও টাকা ছাড়া পাইনি। প্রতি ক্ষেত্রে টাকার প্রয়োজন। মান বাঁচাতে টাকা,রোগ শোকে টাকা। টাকা লাগেনা কোথায় বলতে পারেন ? আমার সখের গোলাপের বাগানে হাল চাষ করতেও টাকা। আজ সুন্দর সুন্দর গোলাপ ফুটে আছে ! দেখতে আমার ভালো লাগে। টাকার অভাবে আমি ভালো চিকিৎসা পাবোনা?

 


লেখক
আজাহারুল ইসলাম
প্রধান শিক্ষক,
কয়াপাড়া কামারকুড়ি উচ্চ বিদ্যালয়
মান্দা, নওগাঁ।