কেশবপুর সাগরদাঁড়ি সড়ক বেহাল দশা

117

জনদুর্ভোগ চরমে।দেখার কেউ নেই শিরোনামে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর পুটিং এর কাজ শুরু

আজিজুর রহমান, কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি: মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মস্থান যশোরের কেশবপুর সাগরদাঁড়ি সড়কটি দূর থেকে দেখলে মনে হবে সড়ক নয় যেন মাটির রাস্তা। গত ২ বছর পর পর বন্যায় সড়কটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এ সময় কর্তৃপক্ষ সংস্কারের নামে ক্ষতিগ্রস্থ স্থান ম্যাকাডাম করে সংস্কার কাজ শেষ করা হয়। জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়ক জুড়ে অসংখ্য ছোট-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। প্রতিনিয়ত ভারি পণ্যবাহী ট্রাক-লরি চলাচল করার সময় সড়কের এসব গর্তে আটকে গিয়ে সীমাহীন যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে সড়ক দিয়ে পথচারীসহ হাটুরেদের চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শিরোনামে গত ২৮ জুলাই একাধিক পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর বৃহস্পতিবার থেকে পুটিং এর কাজ শুরু হয়েছে। কাজ শুরু হওয়ায় ভারী যানবাহন সহ পথচারীদের মাঝে স¦স্তি ফিরে এসেছে ।

সরকারি দু’সংস্থা এলজিইডি ও পর্যটন করপোরেশনের দোটানায় পড়ে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটির সংস্কার বা পুণনির্মাণ ২ বছর ধরে বন্ধ রয়েছে। কেশবপুর থেকে ১৩ কিলোমিটার দূরে মহাকবির জন্মস্থান সাগরদাঁড়ি পর্যন্ত সড়কটির অবস্থান। কেশবপুর-সাগরদাঁড়ি সড়ক দিয়ে প্রতিদিন পৌরসভার একাংশ, মজিদপুর, হাসানপুর, বিদ্যানন্দকাটি ও সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নের মানুষসহ প্রতিদিন বিভিন্ন এলাকার হাজার হাজার মানুষ চলাচল করে থাকে। সাতক্ষীরা যেতে হাইওয়ের চেয়ে প্রায় ১৫ কিলোমিটার পথ কম হওয়ায় যশোর থেকে আসা পণ্যবাহী ট্রাক ও অন্যান্য যানবাহন এ সড়ক দিয়েই যাতায়াত করে থাকে। মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মভূমি সাগরদাঁড়িতে দেশী-বিদেশী পর্যটকসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কবি ভক্তরা বনভোজনে আসায় সড়কটি সবচেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়া যশোর পুলেরহাট থেকে সাগরদাঁড়ির পাশ দিয়ে একটি সড়ক পাটকেলঘাটার কুমিরা গিয়ে মিশেছে। এ কারণেই বর্তমান কেশবপুর-সাগরদাঁড়ি সড়কটি জনগুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। গত ২ বছরের বন্যায় ওই সড়কের পৌরসভা অংশ প্রায় আড়াই মাস বন্যার পানিতে ডুবেছিল। পানি নেমে যাওয়ার পর ক্ষত-বিক্ষত সড়কটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে। ২০১৭ সালের ২৬ জানুয়ারী সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাগরদাঁড়ি মধুমেলায় প্রধান অতিথি হয়ে আসেন। তার আসার সংবাদে উপজেলা প্রকৌশল অফিসের উদ্যোগে সড়কটির বড় বড় গর্তগুলি খুড়ে ফেলা হয়েছিল। এরপর মন্ত্রী হেলিকপ্টারে সাগরদাঁড়ি আসা চুড়ান্ত হওয়ায় গর্তগুলি ইটের খোয়া দিয়ে ভরে ম্যাকাডাম করে সংস্কার কাজ শেষ করা হয়েছিলেন। এরপর থেকে রাস্তাটি আর কার্পেটিং করা হয়নি। বর্তমান বর্ষা মৌসুমে ইটের খোয়া উঠে গিয়ে অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়ে মাটির রাস্তায় পরিনত হয়েছে। গত ২ বছর ধরে সড়কের বড় বড় গর্তে যানবাহন আটকে সীমাহীন যানজটের সৃষ্টি হয়ে পথচারীদের দুর্ভোগ বেড়েই চলেছে। এতে একদিকে যেমন যানবাহন ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে অন্যদিকে মানুষের মূল্যবান সময় নষ্ট হচ্ছিল। ফলে বাধ্য হয়ে জনগণকে ১০/১২ কিলোমিটার ঘুরে কেশবপুর শহরসহ অন্যান্য স্থানে যেতে হচ্ছে। এদিকে মধুকবির জন্মভূমি সাগরদাঁড়ি পর্যটন কেন্দ্র হওয়ায় গত বছর বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন সড়কটি প্রশস্থ ও পুননির্মাণের উদ্যোগ নেয়ায় এলজিইডি, জেলা পরিষদ বা পৌরসভা সড়কটির দিকে আর খেয়াল করছে না। ফলে দোটানায় পড়ে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সড়কটির সংস্কার বা পুণনির্মাণ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। কেশবপুর উপজেলা প্রকৌশলী মুনছুর আলী বলেন, মধুসড়ক আপদকালীন সংস্কারের জন্য একটি প্রাক্কলন তৈরী করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া সড়কটি বড় ধরনের সংস্কারের জন্য ইতিপূর্বে একটি প্রাক্কলন বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনেও পাঠানো হয়। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন ওই সড়কের মাপযোগ সম্পন্ন করেছে। আগামী শুষ্ক মৌসুমে কাজ শুরু হবে। আপাতত বড় বড় গর্তে ইট দিয়ে ভরাট করে চলাচলের উপযোগি করা হচ্ছে। জানা গেছে, পর্যটকদের নির্বিঘেœ চলাচলের জন্য দেশের বিভিন্ন পর্যটন এলাকার সড়ক সংস্কারের জন্য পর্যটন মন্ত্রণালয় ‘লাস্ট মাইল কানেক্টিভিটি’ প্রজেক্ট গ্রহণ করেছে। ওই প্রজেক্টে কেশবপুর-সাগরদাঁড়ি সড়কটি অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। এ ব্যাপারে পর্যটন কর্পোরেশনে প্রকৌশলীরা কাজ করছে। টেন্ডার প্রক্রিয়ার সম্পন্ন হলে পর্যটন কর্পোরেশন এলজিইডির মাধ্যমেই কাজটি বাস্তবায়ন করবে।