কেশবপুরে সাগরদাঁড়িতে আসা দর্শনার্থীদের ক্ষোভ নদে কচুরিপনা জমে সৌন্দর্য নষ্ট

আজিজুর রহমান, কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি: কেশবপুরে সাগরদাঁড়িতে কপোতাক্ষ নদের ব্যাপক এলাকায় কচুরিপনা জমে রয়েছে। মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মভূমি নদ পাড়ে কবির স্মৃতিবিজড়িত বিদায় ঘাট, বয়েসি কাঠবাদামতলাসহ জেলা পরিষদ ডাকবাংলোর পাশে কপোতাক্ষ নদে কচুরিপানা জমে থাকায় সাগরদাঁড়িতে আসা মধুভক্ত দর্শকদের হতবাক করে তুলছে।

সরেজমিন সাগরদাঁড়িতে গিয়ে দেখা যায়, নদে বাঁশের সাঁকোর কারনে কচুরিপনা আটকে থাকায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড সুত্র জানায়, বৃষ্টির কারনে নদের সংযোগ ছোট ছোট খাল ও বিল থেকে কচুরিপনা ভেসে এসে কপোতাক্ষ নদে জড়ো হচ্ছে। পানি প্রবাহে প্রতিবন্ধকতা অপসারণ করা না গেলে দীর্ঘদিন এভাবে সাগরদাঁড়ি এলাকায় কচুরিপনা জমে থাকবে।

কবির স্মৃতিবিজড়িত নদের বিদায় ঘাট এলাকায় কথা হয়, সাগরদাঁড়ির আলোকচিত্রশিল্পী মুফতি তাহেরুজ্জামান তাছুর সাথে, তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, কচুরিপনা জমে থাকায় নদের সৌন্দর্য নষ্টের পাশাপাশি দর্শনার্থীরা নদের পানি স্পর্শ করবে সে অবস্থাও দেখা সাগরদাঁড়ি কলেজ ও স্কুলের একাধিক শিক্ষার্থী ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, কচুরিপনার কারনে নদের বিদায় ঘাট এলাকায় নৌকা ভ্রমনও বন্ধ হয়ে রয়েছে। দর্শনার্থীরা এসে এ অবস্থা দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী সায়েদুর রহমান জানান, বৃষ্টির কারনে নদের সংযোগ ছোট ছোট খাল ও বিল থেকে ভেসে এসে কপোতাক্ষ নদের প্রায় ৩০০ মিটার এলাকায় কচুরিপনা জমে রয়েছে। সাগরদাঁড়ির বাঁশের সাঁকোয় বেধে কচুরিপনা জমা হয়ে রয়েছে। পানি প্রবাহে প্রতিবন্ধকতা অপসারণ করা না গেলে দীর্ঘদিন এভাবে সাগরদাঁড়ি এলাকায় নদে কচুরিপনা জমে থাকবে। এব্যাপারে সাগরদাঁড়ি বাজার কমিটির সভাপতি সুভাষ চন্দ্র দেবনাথ জানান, বাঁশের সাঁকোয় বেধে জমা হওয়া কচুরিপনা দ্রুত অপসারনের ব্যবস্থা নেয়া হবে।