কেশবপুরে বিয়ের দাবিতে কলেজ ছাত্রীর প্রেমিকের বাড়িতে ২দিন ধরে অনশন

আজিজুর রহমান, কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি: কেশবপুরে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে এক কলেজ পড়–য়া ছাত্রী ২ দিন ধরে অনশন করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রেমিকের প্রভাবশালী অভিভাবকরা ওই ছাত্রীর প্রেমকে অস্বীকার করাসহ তাকে চরিত্রহীন বলে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, মনিরামপুর উপজেলার শয়লা গ্রামের আব্দুল হাকিম মোল্যার মেয়ে নাসরিন আক্তার রিয়া কেশবপুর উপজেলার কোমরপুর আইডিয়াল কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। ২ বছর আগে কলেজে আসার সুবাদে উপজেলার মূলগ্রামের আতিয়ার খাঁর ছেলে ও খাঁন মোবাইল সেন্টারের মালিক মইনুর রহমানের সাথে তার পরিচয় ঘটে। এ পরিচয়ের সূত্র ধরে এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্কে গড়ে ওঠে। এ সময় মেয়েটির সরলতার সুযোগ নিয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে লম্পট মইনুর রহমান তার সাথে দৈহিক সম্পর্ক চালিয়ে যেতে থাকে বলে ওই ছাত্রী প্রকাশ্যে অভিযোগ করে।

নাসরিন আক্তার রিয়ার অভিযোগ, আমার সাথে মইনুরের প্রেমের সম্পর্কের কথা জেনেও তার অভিভাবকরা বিভিন্ন জায়গায় মেয়ে দেখাদেখি করে আগামী শুক্রবার মইনুরের বিয়ের দিনক্ষণ ঠিক করে। এ খবর আমি জানতে পেরে শনিবার বিকাল থেকে স্ত্রীর স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য বিয়ের দাবিতে মইনুরের বাড়িতে হাজির হই। এ সময় মইনুরের অভিভাবকরা আমাকে দুশ্চরিত্রা বলে তিরস্কার করে শারীরিকভাবে নির্যাতন অব্যাহত রাখে। এক পর্যায়ে আমি অনশন শুরু করি।

এ রিপোর্ট লেখার সময় মেয়েটি প্রেমিক মইনুরের বাড়িতেই অবস্থান করছিল। এ ব্যাপারে কেশবপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যাপক আলাউদ্দীন আলা বলেন, মেয়েটিকে কোন প্রকার নির্যাতন না করে মইনুরের বাড়িতে রাখা হয়েছে। তার অভিভাবকদের খবর দেয়া হয়েছে। রবিবার বিকালে উভয় পরিবারের লোকদের নিয়ে বসে বিষয়টি নিরসন করা হবে।

পরবর্তিতে রবিবার সন্ধ্যার দিকে কেশবপুর থানার পুলিশ খবর পেয়ে প্রেমিক মইনুর রহমান ও প্রেমিকা নাসরিন আক্তার রিয়াকে থানায় নিয়ে যায়।

error: লাল সবুজের কথা !!