কেশবপুরে ছাত্রদলের একাধিক নেতার বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ

17
বিএনপি,যুবদল

ত্যাগি নেতা-কর্মীদের মাঝে চাপা ক্ষোভ

আজিজুর রহমান, কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি: গত জুন মাসে যশোর জেলা ছাত্রদলের কমিটি ষোষিত হওয়ায় ঝিমিয়ে পড়া কেশবপুরের ছাত্রদলের নেতা-কর্মিরা উজ্জীবিত হয়ে উঠেছে। তারা বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করাসহ দেয়ালে দেয়ালে পোস্টারিং করে চলেছেন। বিএনপির অন্যতম এ সংগঠনটির গুরুত্বপূর্ন পদ পেতে দৌড়-ঝাপ শুরু করেছেন একেক পদের জন্য একাধিক নেতা। তবে এদের মধ্যে একাধিক নেতার বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে গত ইউপি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ না করা ও সরাসরি ছাত্রলীগের সক্রিয় সদস্য বলে অভিযোগ রয়েছে। ছাত্রদলের গুরুত্বপূর্ন পদ পেতে বিতর্কিত এসব নেতাদের দৌড়-ঝাপ দেখে ছাত্রদলের ত্যাগি নেতা-কর্মিদের মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

সূত্র জানায়, কেশবপুর থানা, পৌর ও কলেজ শাখা ছাত্রদলের আংশিক কমিটি ২০১৩ সালে গঠিত হয়। থানা ছাত্রদল ৮ সদস্যের, কলেজ শাখা ছাত্রদল ৭ সদস্যের ও পৌর ছাত্রদল ৬ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। থানা কমিটিতে তরিকুল ইসলামকে সভাপতি, মজনু হুসাইনকে সিনিয়র সহ-সভাপতি, মেহেদী হাসান শিপনকে সাধারণ সম্পাদক, ইয়াছিন আলী, বাবুল রানা বাবু, আব্দুল খালেককে যুগ্ম্-সম্পাদক, বাবলুর রহমানকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে, পৌর কমিটিতে মোকাদ্দেছুর রহমান বাবুকে সভাপতি, জাহঙ্গীর হোসেন পলাশকে সিনিয়র সহ-সভাপতি, আনোয়ারুল ইসলাম রনিকে সাধারণ সম্পাদক, রিপন হোসেন, মেহেদী হাসানকে যুগ্ম্-সম্পাদক ও জাহাঙ্গীর আলমকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে, কেশবপুর সরকারি ডিগ্রী কলেজ শাখার কমিটিতে মিজানুর রহমান মিঠুকে সভাপতি, আব্দুল হালিমকে সিনিয়র সহ-সভাপতি, ফরিদ-উজ-জামানকে সাধারণ সম্পাদক, আল-আমিন, ইবাদুল ইসলামকে যুগ্ম্-সম্পাদক, খায়রুল বাবুকে সাংগঠনিক সম্পাদক, ইমরান হোসেনকে সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক করে আংশিক কমিটি গঠন করা হয়। দীর্ঘদিনে কমিটি পূূর্নাঙ্গ না হওয়ায় সংগঠনটির কর্যক্রম ঝিমিয়ে পড়ে।

সূত্র জানায়, গত জুন মাসে যশোর জেলা ছাত্রদলের আংশিক কমিটি ষোষিত হওয়ায় ঝিমিয়ে পড়া ছাত্রদলের নেতা-কর্মিরা নড়েচড়ে বসেছেন। তারা গুরুত্বপূর্ন পদ পেতে তৃণমূল থেকে শুরু করে উপরি মহলে তদবির চালিয়ে যাওয়াসহ বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল এবং দেয়ালে দেয়ালে পোস্টারিং করে চলেছেন। গত ৩ জুলাই বিকালে থানা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মজনু হুসাইন ও সাবেক ছাত্রনেতা আব্দুল গফুরের নেতৃত্বে উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়নের শ্রীরামপুর বাজারে, গত ৯ জুলাই দুপুরে থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান শিপন, জাহঙ্গীর আলম, ছাত্রনেতা বিপুল আজিজ ও মেহেদী হাসান হিমেলের নেতৃত্বে হাসানপুর ইউনিয়নের বগা মোড়ে, গত ৯ জুলাই ছাত্রনেতা মেহেদী হাসান বিশ্বাসের নেতৃত্বে কেশবপুর শহরে ও গত ১১ জুলাই হাসানপুর ইউনিয়নের বগা মোড়ে সাবেক জেলা ছাত্রদলের সহ-দপ্তর সম্পাদক ফারুক খান, মজনু হুসাইন ও ফরিদ-উজ-জামানের নেতৃত্বে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন।

এছাড়া ২২ জুলাই ছাত্রনেতা মেহেদী হাসান বিশ্বাস ও সুজন রহমানের নেতৃত্বে, ২৯ জুলাই থানা ছাত্রদলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক বাবুল রানা বাবু ও ছাত্রনেতা জাকির হোসেনের নেতৃত্বে শহরে বিভিন্ন ভবনের দেয়ালে দেয়ালে পোস্টার লাগানো হয়।

জানা যায়, থানা ছাত্রদলে গুরুত্বপূর্ন পদ পেতে মেহেদী হাসান বিশ্বাস, বাবুল রানা বাবু, আলী মুনছুর, খায়রুল বাবু, মেহেদী হাসান হিমেল, বিপুল আজিজ, মুস্তাফিজুর রহমান, সবুজ আরমান, হুসাইন মজনু, জাকির হোসেন, ফরিদ-উজ-জামান, মাসুম বিলাহ, মাসুদ রানা, পৌর ছাত্রদলে গুরুত্বপূর্ন পদ পেতে ইকরামুল কবির, এসএম ফারুক হোসেন, ইমন বিশ্বাস, জাহাঙ্গীর আলম, শহিদুল ইসলাম, মেহেদী হাসান, মেহেদী হাসান সুমন, সোহানুর রহমান সোহান ও কেশবপুর সরকারি কলেজ ছাত্রদল গুরুত্বপূর্ন পদ পেতে সুজন রহমান, মাসুম বিলাহ, নাসিম উদ্দীন, আবুল বাশার, তৃণমূল থেকে শুরু করে উপরি মহলে তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন। এদের মধ্যে সুজন রহমান নাশকতা মামলায় জেল হাজাত রয়েছে।

এদিকে, থানা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি হুসাইন মজনু হুসাইনের বিরুদ্ধে গত ইউপি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচন না করে সরাসরি আওয়ামীলগের প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচন করার অভিযোগ রয়েছে তার ইউনিয়নে বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীর। এছাড়া ছাত্রনেতা বিপুল আজিজ দৌলতপুর বি,এল কলেজ ছাত্রলীগের সক্রিয় সদস্য বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ছাত্রদলের একাধিক সূত্র জানায়।

সাঁগরদাড়ি ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ও গত ইউপি নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মাষ্টার আমানত আলী জানান, আমি গত ইউপি নির্বাচনে দলের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়ে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করি। ওই নির্বাচনে থানা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মজনু হুসাইন ধানের শীষ প্রতীকের পক্ষে নির্বাচন না করে সরাসরি আওয়ামীলীগের প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচন করে।

জেলা ছাত্রদলের সভাপতি রাজিদুর রহমান সাগর ও সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান বাপ্পি বলেন, বিগত দিনে যারা আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় ভূমিকা রেখেছে তাদের ভেতর থেকে নিয়মিত ছাত্র ও অবিবাহিতদের উপজেলা ছাত্রদলের কমিটিতে রাখা হবে। এছাড়া করো বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ থাকলে তা যাচাই বাছাই করা হবে। সত্যতা পেলে ছাত্রদলে তাদের কোন জায়গা নেই।