কেশবপুরে চারদিন ব্যাপী ফলদ বৃক্ষমেলার উদ্বোধন

আজিজুর রহমান, কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি: জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক বলেন, আগস্ট মাস এলেই মনের ভেতর একটি অজানা ভয় দেখা দেয়। কারন বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে এ মাসেই হত্যা করা হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপর এই আগস্ট মাসে হত্যার জন্য হামলা করা হয়েছে। আজ যে বৃক্ষমেলা উদ্বোধন করা হচ্ছে

সেটায় বাংলাদেশের প্রধান নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুই প্রথম শুরু করেছিলেন। তিনি চেয়েছিলেন সুজলা-সুফলা সুন্দর সোনার বাংলাদেশ গড়তে। কোন প্রতিরোধের ব্যবস্থা না থাকায় এখন বর্জপাত বেশী হয়। আগে এতো বর্জপাত হতো না। তাল গাছ বর্জপাত কমাতে পারে। আপনারা সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তুলুন। বাড়ি আঙ্গীনায় গাছ লাগান। পুষ্টির অভাব পূরুন করতে, রোগের পথ্য হিসেবে, মাটির ক্ষয় রক্ষা করতে আপনারা গাছ লাগান। বেকারত্ব দূর করতে ফল চাষ করুন এবং বিদেশে রফতানি করে দেশের উন্নয়ন করেন। সামাজিক আন্দোলনের অংশ হিসেবে গাছ লাগান। বিদেশে মাটিতে তেমন গাছ হয়না তবু তারা মরুভূমিতে অনেক কষ্ট করে গাছ লাগায়। অথচ আমাদের দেশে সহজে গাছ জন্মে মাটির উর্বরতার কারনে। স্থানীয় পাবলিক মাঠে উপজেলা প্রশাসন ও কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের আয়োজনে অনুষ্ঠিত মঙ্গলবার কেশবপুরে চারদিন ব্যাপী ফলদ বৃক্ষমেলা উদ্বোধন কালে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক এ সব কথা বলেন।

উপজেলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানূর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, যশোর কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপপরিচালক গাজী হাবিবুর রহমান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নাছিমা সাদেক, আব্দুল লতিফ রানা, কৃষি অফিসার মহাদেব চন্দ্র সানা, ওসি সৈয়দ আব্দুল্লাহ প্রমুখ। আলোচনা সভার আগে প্রতিমন্ত্রী নেতৃত্বে একটি র‌্যালী বের করা হয়। ফলদ মেলায় ২০টি বিভিন্ন প্রকার ফলদ বৃক্ষের স্টল বসেছে। এ সময় শিশুদের মাঝে ফলদ বৃক্ষের চারা প্রদান করেন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক।

এছাড়া তিনি ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে শিশুদের চিত্রাংকন, রচনা ও আবৃতি প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা, শোক র‌্যালী ও পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদান করেন। এরপর তিনি উপজেলা পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত করে বর্ষা প্লাবিত পানিতে, প্লাবনভূমি, প্রাতিষ্ঠানিক জলাশয়ে পোনা মাছ অবমুক্ত কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।