কেশবপুরে করোনা রোগী শনাক্ত

74

আজিজুর রহমান, কেশবপুর প্রতিনিধি ।। যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত স্বাস্থ্যকর্মী তিনি এখনো এই মরণব্যাধির জীবাণু বহন করছেন। দ্বিতীয় দফায় নমুনা পরীক্ষায় করেও তার শরীরে ও তার ছোট শ্যালক করোনা পজেটিভ।

বৃহস্পতিবার সকালে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবি প্রবি) জেনোম সেন্টার থেকে যশোরের যে দুটি নমুনা পজেটিভ বলে শনাক্ত করা হয়েছে জানা গেছে মনিরামপুরে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত স্বাস্থ্যকর্মী রবিউল ইসলাম ও কেশবপুর উপজেলার ইমাননগর গ্রামে তার সাথে ছোট শ্যালক সোহাগ (১৮) এখন করোনা পজেটিভ। এ তথ্যের নির্ভুলতা নিশ্চিত করেছেন কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আলমগীর হোসেন ।

মনিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শুভ্রারানী দেবনাথ সাংবাদিকদের বলেন, ২২ এপ্রিল সকালে ওই স্বাস্থ্যকর্মীর শরীর থেকে দ্বিতীয় বারের মতো নমুনা সংগ্রহ করা হয়। একইসঙ্গে তার শ্বশুর, শাশুড়ি, নানিশাশুড়ি ও শ্যালকের নমুনা সংগ্রহ করে সিভিল সার্জন অফিসের মাধ্যমে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় পরীক্ষাঘরে পাঠানো হয়। পরিক্ষা-নিরীক্ষা সম্পন্ন হলে তার মধ্যে স্বাস্থ্যকর্মী ও তার শ্যালকের ফলাফল পজেটিভ এসেছে ও বাকি তিনজনের ফলাফল নেগেটিভ।

ডা. শুভ্রারানী সাংবাদিকদেরকে আরো বলেন, ওই স্বাস্থ্যকর্মীকে কেশবপুরের ইমাননগরে তার শ্বশুরবাড়িতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার শ্যালককে মনিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে।

গত ১২ এপ্রিল স্বাস্থ্যকর্মী রবিউলের করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসে। তারপর থেকে কেশবপুরে শ্বশুরবাড়িতে রেখে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হয়। তিনি এখনো সেখানে রয়েছেন। এর আগে তিনি ‘ভালো আছেন’ বলে নিজের ফেসবুক ওয়ালে স্ট্যাটাস দিয়ে সবার কাছে দোয়া চেয়েছিলেন।