কেশবপুরে আস্থা পল্লী উন্নয়ন সমিতির ফাঁদে পড়ে সর্বস্বান্ত ফার্ণিচার ব্যবসায়ী

12
লাল সবুজের কথা- Lal Sobujer Kotha

আজিজুর রহমান, কেশবপুর প্রতিনিধি : কেশবপুরে আস্থা পল্লী উন্নয়ন সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেডের ঋণের ফাঁদে পড়ে এক ফার্ণিচার ব্যবসায়ী সর্বস্বান্ত হয়েছেন। ওই সমিতির ফ্লাড ইন্টারেস্টের নামে চড়া সুদ দিতে ব্যর্থ হওয়ায় ইতোমধ্যে ওই ব্যবসায়ীকে পুলিশে দিয়ে জেলে ঢোকানো হয়েছে বলে অভিযোগ।

এ ব্যাপারে প্রতিকার চেয়ে গত ১১ ডিসেম্বর ফার্ণিচার ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে একটি অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অভিযোগটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্যে উপজেলা সমবায় কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালে কেশবপুর পৌর এলাকার অনন্ত সড়কের পাশে উত্তম সাহা, মকবুল হোসেনসহ কতিপয় ব্যক্তি আস্থা পল্লী উন্নয়ন সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান খাড়া করে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে সঞ্চয় ও ঋণদান কর্মসূচীর কার্যক্রম শুরু করেন। ২০১৭ সালের ৩ এপ্রিল পৌর এলাকার সাবদিয়া অফিসপাড়ার ফার্ণিচার ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম ব্যবসা টিকিয়ে রাখার স্বার্থে ওই সমিতির সদস্য হন। এ সময় ঋণ দেয়ার আশ্বাস দিয়ে কর্তৃপক্ষ তার ও জামিনদারের কাছ থেকে চুকনগর শাখার এসবিএসি ব্যাংক লিমিটেডের ০১১১১০০০০৮৩৯০৬ নম্বর হিসাবের সিএ.সিডিএ- ১০৪২৬২৭ ও ১০৪২৬২৮ নম্বরের বøাংক চেক এবং ১০০ টাকার ২টি নন জুডিশিয়াল ব্যাংক স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে নিয়ে ১ লাখ টাকার ঋণ প্রদান করেন।

কিন্তু তিনি ব্যবসা পরিচালনা করতে ব্যর্থ হয়ে ঋণের দায়ে পালিয়ে বেড়াতে থাকেন। এরই ফাঁকে তিনি ওই সমিতিকে প্রতিমাসে ৩ হাজার টাকা করে ৭ মাসে ২১ হাজার টাকা ঋণের কিস্তি হিসেবে জমা দেন। এছাড়া ওই সমিতিতে তার ডিপিএস বাবদ ৮ হাজার টাকা, সঞ্চয় বাবদ ২৬ হাজার ১’শ টাকা জমা রয়েছে। এরপরও কিছুদিন ঋণের কিস্তি দিতে ব্যর্থ হওয়ায় সমিতি কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট করিয়ে পুলিশে ধরিয়ে দিয়ে হয়রানি করেন। শুধু তাই নয় ওই ব্যাংক চেকের একটিতে ২ লাখ ২৭ হাজার ৭’শ টাকা বসিয়ে এসবিএসি ব্যাংক লিমিটেড থেকে চেকটি ডিজনার করিয়ে তার বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা করেন। জেল থেকে ছাড়া পেয়ে ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম বিষয়টি নিরসনের কথা বললে সমিতি কর্তৃপক্ষ ঋণটি ফ্লাড ইন্টারেস্টে দেয়া হয়েছে বলে তাকে জানায়। কিন্তু ঋণ নেয়ার আগে তাকে ফ্লাড ইন্টারেস্টের বিষয়টি গোপণ রাখা হয় বলে তিনি অভিযোগ করেন। তিনি না বুঝেই ঋণটি নিয়েছিলেন।

ঋণগ্রস্থ শহিদুল ইসলাম আবেদনপত্রে ওই সমিতির ব্যাংক চেক, স্ট্যাম্প নিয়ে প্রতারণাসহ ফ্লাড ইন্টারেস্টের নামে চড়া সুদ আদায়ের নামে প্রতারণা, হয়রানি, হুমকির হাত থেকে রক্ষার দাবি জানান।

এ ব্যাপারে আস্থা পল্লী উন্নয়ন সঞ্চয় ও ঋণদান সমবায় সমিতি লিমিটেডের সাধারণ সম্পাদক উত্তম সাহা বলেন, তার প্রতিষ্ঠানটি এলাকায় সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছে। গ্রাহক শহিদুল ইসলাম ১৮ মাস কিস্তির টাকা দেয়নি। তার ব্যাপারে স্থানীয় মাতব্বররা দায়িত্ব নিয়ে শুধু সময় ক্ষেপণই করেছেন। তাছাড়া নিয়মানুযায়ী পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়। প্রতিষ্ঠান তার কাছে যে টাকা পাবে তার থেকে বেশী লেখা হয়নি। সে অভিযোগে মনগড়াভাবে অংক বসিয়েছেন বলে তিনি অভিযোগ করেন।

উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অভিযোগটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্যে তাকে নির্দেশ দিয়েছেন। অচিরেই উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।