কেশবপুরে আদালতের নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ করে জমি দখলের চেষ্টা॥ মহিলাসহ আহত-৫

10
কেশবপুরে আদালতের নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ করে জমি দখলের চেষ্টা॥ মহিলাসহ আহত-৫

আজিজুর রহমান, কেশবপুর থেকে: কেশবপুরে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে একটি বিরোধপূর্ণ জমির দখল নিতে গেলে সৃষ্ট সংঘর্ষে ৫ জন আহত হয়েছে। আহতদেরকে কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে রোকেয়া বেগমের মুখ বিষাক্ত ক্যামিক্যাল দিয়ে ঝলসে দেয়া হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। এ ঘটনায় আবুবকর বাদী হয়ে আজিবার রহমান, আব্দুল গফুরসহ ৫/৬ জনের নাম উল্লেখ করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ১৯৮০ সালে উপজেলার লক্ষীনাথকাটি গ্রামের মোফাজ্জেল হোসেন মৃত বাগান দফাদারের মেয়ে সখিনা বেগমের কাছ থেকে ১৩ শতক জমি ক্রয় করে ভোগ দখল করে আসছিল। একই গ্রামের আফছার আলীর ছেলে আজিবার রহমান ওয়ারেশ সূত্রে ওই জমি জবর দখলের হুমকি দিলে মোফাজ্জেল হোসেনের ছেলে আবুবকর আদালতে ১৪৪ ধারায় মামলা করেন। শান্তি শৃঙ্খলা ভঙ্গের আশঙ্কায় আদালতের নির্দেশে পুলিশ ওই জমির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

পরবর্তীতে পুলিশ তদন্ত করে মোফাজ্জেল হোসেনের পক্ষে রায় প্রদান করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে। এ ঘটনায় ওই জমি নিয়ে প্রতিপক্ষ আজিবার রহমান বাদী হয়ে আদালতে মামলা করলে এ মামলার রায়ও মোফাজ্জেল হোসেনের পক্ষে যায়। এ সময় আজিবার রহমান আফিল করলে মামলাটি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

এদিকে রবিবার সকালে আজিবার রহমান ও বাবর আলীর ছেলে আব্দুল গফুরের নের্তৃত্বে ৮/১০ জন যুবক লাঠিসোটা নিয়ে মোফাজ্জেল হোসেনের ওই জমি দখলে নিতে যায়। এ সময় বাধা দিতে গেলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষে আবুবকর, আবু তাহের, রোকেয়া বেগম, মোফাজ্জেল হোসেন তার স্ত্রী আনোয়ারা বেগম আহত হয়। এর মধ্যে রোকেয়া বেগমের মুখ বিষাক্ত ক্যামিক্যাল ঝলসে দিয়ে ঝলসে দেয়ায় তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের ডাক্তার আনোয়ার হোসেন বলেন, ওই মহিলার মুখে ক্যামিক্যাল মিশ্রিত পানি সিরিঞ্জ দিয়ে পুশ করা হয়েছে। তার এখন উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন, এখানে তার চিকিৎসা সম্ভব নয়। এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিন বলেন, অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।