কলারোয়ায় ধর্ষণ করে ভিডিও ধারণ : দুইজনের নামে মামলা

89

কলারোয়া (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি : কলারোয়ায় এক সন্তানের জননিকে ধর্ষণ করে ভিডিও ধারন করায় দুই লম্পটের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এঘটনায় ওই নারী
মঙ্গলবার (১৮জুলাই) সকালে কলারোয়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তাদের বিচার দাবী করেছেন।

উপজেলার কুশোডাঙ্গা গ্রামের জনৈক ইসলামের
কন্যা (২৩) সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলেন-তার স্বামী কাজ কর্মের জন্য প্রায় সময় ভারতে থাকেন। এজন্য তিনি গত ৪জুন-২৩ তারিখে পাসপোর্ট এর ভিসা লাগানোর জন্য আবেদন করতে উপজেলার কাজিরহাট বাজারের বিক্রম এন্টারপ্রাইজে যান। সেখানে পূর্ব থেকে শিবানন্দকাটি গ্রামের আদম ব্যবসায়ী মৃত হোসেন আলীর ছেলে মোবারক আলী বসে থাকেন। এর কিছুক্ষণ পরে তিনি ওয়াস রুম কোথায় জিজ্ঞাসা করলে বিক্রম এন্টারপ্রাইজে এর স্বত্বকারী মোকন্দ দাস দফাদার বলেন উপরে দুই তলায়। তিনি ওয়াস রুমে গেলে পিছে পিছে লম্পট মোবারক আলী ও মোকন্দ দাস উপরে দুই তালায় চলে আসেন। গলায় ছুরি ধরে জোরপূর্বক
মোবারক আলী তাকে ওই রুমে ফেলে ধর্ষন করে।

এসময় মোকন্দ দাস বাইর থেকে দরজা লাগিয়ে দেয়। ধর্ষণের সময় মোবারক আলী মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করে রাখে।
পরে মোকন্দ দাস ও মোবারক আলী ওই ভিডিও ফেইসবুকে ভাইরাল করে দেয়ার ভয় দেখিয়ে ৫০ হাজার টাকা দাবী করে। স্বামীর সংসারের কথা চিন্ত করে ভয়ে ছাগল বিক্রয় করে ১৫ হাজার টাকা তুলে দেয় তাদের হাতে। কিন্তু টাকা নিয়েও তারা ভিডিও ডিলেট না করে আরো টাকা দাবী করছে। তাদের দাবীকৃত ওই টাকা দিতে না পারায় তার স্বামীর কাছে ভিডিও ধারনের কথা বলে দেয় মোবারক আলী ও মোকন্দ দাস। এ নিয়ে তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়। পরে তাকে আর রাখবে
না বলে স্বামী ওই নারীকে শিশু বাচ্চা সহ বাড়ী থেকে তাড়িয়ে দেয়। বর্তমানে ওই অসহায় নারী কোন উপরন্ত পথ না পেয়ে সাতক্ষীরার বিজ্ঞ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে একটি পিটিশন নং-৩১৭/২৩মামলা দায়ের করেন।
বর্তমানে মামলাটি সাতক্ষীরা পিবিআই তদন্ত করছেন। এদিকে নিরহ ওই নারী ন্যায় বিচার পাওয়ার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের  হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।