কয়রা সরকারি মহিলা কলেজের নাম অবৈধ ঘোষণা করে আদালতের রায়

210
কয়রা সরকারি মহিলা কলেজের নাম অবৈধ

ওবায়দুল কবির সম্রাট, কয়রা: খুলনার কয়রা উপজেলা সদরে অবস্থিত একমাত্র কয়রা সরকারি মহিলা কলেজের বর্তমান নাম অবৈধ ঘোষনা করে রায় প্রদান করেছেন বিজ্ঞ আদালত। বুধবার (৩ মার্চ) কয়রা সিনিয়র সহকারী জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মোঃ ফারুক আযম এই রায় প্রদান করেন।

জানা যায়, বাংলাদেশের সর্বদক্ষিণে প্রত্যন্ত এ অঞ্চলে নারী শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্যে সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার গাবুরা ইউনিয়নের বাসিন্দা জি এম সোহরাব আলী কলেজ বাউন্ডারিতে ৩ বিঘা জমি ও অন্য স্থানে আরো ২২ বিঘা জমি সহ নগত ১৫ লক্ষ ৭শত টাকা দিয়ে ১৯৯৬ সালে উপজেলা সদরে তার স্ত্রীর নামে জোবেদা খানম মহিলা কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন।  পরবর্তীতে ২০১১ সালে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী ২০১৬ সালের মার্চ মাসে কয়রা সরকারি মহিলা কলেজ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে।

তবে ২০১১ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর কয়রা উপজেলার জনৈক মতিউর রহমানের আবেদনের প্রেক্ষিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২০১২ সালে জোবেদা খানম মহিলা কলেজের নাম পরিবর্তন করে কয়রা মহিলা কলেজ রাখা হয়। এবং 2016 সালের মার্চ মাসে কয়রা সরকারি মহিলা কলেজ হিসেবে কার্যক্রম শুরু হয় ।

উক্ত নাম পরিবর্তনকে চ্যালেঞ্জ করে উক্ত জোবেদা খানম বাদি হয়ে প্রথমে মহামান্য হাইকোর্টে রিট পিটিশন করেন। রিট পিটিশনের শুনানি অন্তে মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা মোতাবেক দেওয়ানী আদালতে মামলা করে সাক্ষী-প্রমাণ গ্রহণের জন্য কয়রা সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে দেঃ ১১১/২০১৫ নং মোকদ্দমা দায়ের করেন। উক্ত মোকদ্দমায় দোতরফা বিচারে উক্ত নাম পরিবর্তনকে অবৈধ ঘোষণা করে বিজ্ঞ আদালত রায় প্রদান করেন।

বাদী পক্ষের উকিল হিসেবে মামলাটি পরিচালনা করেন অ্যাড. সুধাংশু কুমার সরদার ও অ্যাড. অম্বিকাচরণ সানা। বিবাদী পক্ষের উকিল ছিলেন অ্যাড. আলহাজ কেরামত আলী।