কনডম নিয়ে বাবা-ছেলের সেক্স চ্যাট (ভিডিও)

193
কনডম নিয়ে বাবা-ছেলের সেক্স চ্যাট (ভিডিও)
কনডম নিয়ে বাবা-ছেলের সেক্স চ্যাট (ভিডিও)

বিনোদন ডেস্কঃ শিরোনাম দেখে আতকে উঠতে পারেন কেউ কেউ। ভাবতে পারেন, এ কি করে সম্ভব? ছেলের সঙ্গে বাপ কি কনডম নিয়ে আলাপ করতে পারে? তাহলে নিজের চোখেই দেখুন। এক বাচ্চা ছেলে টিভিতে ক্রিকেট খেলা দেখছিল। খেলার মাঝখানে এক বিজ্ঞাপন দেখে মুগ্ধ সে। কনডমের বিজ্ঞাপনে এক আবেদনময়ী নারী স্ট্রবেরি খাচ্ছেন। ছেলেটার ধারণা হলো, কনডম আসলে ক্যান্ডি!

কনডম বা কন্ডোম প্রধানত যৌনসংগমকালে ব্যবহৃত এক প্রকার জন্মনিরোধক বস্তু। এটি মূলত গর্ভধারণ ও গনোরিয়া, সিফিলিস ও এইচআইভি-এর মতো যৌনরোগের প্রতিরোধক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কনডম জলাভেদ্য, স্থিতিস্থাপক ও টেকসই বলে একে অন্যান্য কাজেও লাগানো যায়। বীর্যহীনতা চিকিৎসায় ব্যবহারের জন্য কনডমের মধ্যে করে বীর্য সংগ্রহ করা হয়। জলাভেদ্য মাইক্রোফোন তৈরি ও রাইফেলের ব্যারেল নোংরা পচা বস্তু দ্বারা বুজে যাওয়া আটকাতেও কনডম ব্যবহৃত হয়।

বাবা যখন জিজ্ঞাসা করলো, কী দেখছিস? বাচ্চাটা জানালো সেই ‘ক্যান্ডির’ কথা। বাবার তো আক্কেল গুড়ুম, বলে কি ছেলে, কনডম ক্যান্ডি হতে যাবে কোন দুঃখ? আসলে বিজ্ঞাপনটা এমনভাবে তৈরি যে দেখলে হয়ত কনডম যারা চেনে না তাদের এমনই মনে হতে পারে। বাবা খানিকটা ভেবে সিদ্ধান্ত নিলেন সন্তানকে কনডম কী, তা জানাবেন।

কিন্তু বাঙালি বা দক্ষিণ এশিয়ার সমাজে যৌনতা নিয়ে কথা বলা একরকম নিষিদ্ধ বিষয় বলা চলে। অন্তত আমাদের বাবাটি ছোটবেলায় এই নিয়ে কথা বলতে পারেননি। তাঁর ধারণা ছিল কনডম হচ্ছে বেলুন। এ কথা চিন্তা করে রাস্তায় কুড়িয়ে পাওয়া একটি কনডমকে ফুলিয়ে একবার বেলুন বানিয়ে ছিলেন তিনি। তা সেই ব্যক্তির পক্ষে কনডম কী, তার ব্যাখ্যা করা কি সহজ কাজ?

বাকিটা আর বলছি না, বাংলা ভাষায় ভিডিওতেই দেখে নিন। কথা দিচ্ছি, আপনার ভালো লাগবে। ট্যাবু টপিক মনে করে আমরা যা এড়িয়ে যাই, তা ছোট ছেলে-মেয়েদের মনে কীরকম প্রভাব ফেলে জানা যাবে এই ভিডিওতে। অবশ্য শুধু কনডম নয়, সেক্স সম্পর্কিত আরো অনেক বিষয় নিয়ে এ রকম ভিডিও তৈরি করেছে ওয়াইফিল্মস নামের একটি ভারতীয় স্টার্টআপ। আর সেক্স-টক ভিডিওগুলো স্পন্সর করেছে কনডম ব্রান্ড ডিউরেক্স। ভিডিওগুলো মূলত হিন্দিতে হলেও বাংলাসহ বিভিন্ন ভাষায় ইতিমধ্যে ভাষান্তরও করা হয়েছে সেগুলোর।

আধুনিক যুগে কনডম মূলত তরুক্ষীর থেকে প্রস্তুত করা হয়। তবে কনডম তৈরি ক্ষেত্রে অনেক সময় পলিআরথিন, পলিইসোথ্রিন বা ল্যাম্ব ইনসেসটাইনও ব্যবহৃত হয়। মহিলাদের কনডমও পাওয়া যায়। জন্ম নিয়ন্ত্রণের পদ্ধতি হিসেবে কনডম অত্যন্ত সুলভ, সহজে ব্যবহার্য, কম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াযুক্ত ও যৌনব্যাধি প্রতিরোধে সর্বাধিক কার্যকর। সঠিক জ্ঞান ও ব্যবহার কৌশল এবং যৌনসংগমের প্রতিটি ক্রিয়ায় ব্যবহৃত হলে যেসব মহিলাদের পুরুষ যৌনসঙ্গীরা কনডম ব্যবহার করেন, তাঁরা বার্ষিক মাত্র ২ শতাংশ গর্ভাবস্থার সম্মুখীন হন।

কনডম প্রায় ৪০০ বছর ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। ঊনবিংশ শতাব্দী থেকেই কনডম ব্যবহার সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় জন্মনিরোধ পদ্ধতি। আধুনিক সমাজে কনডমের ব্যবহার ব্যাপক মান্যতা লাভ করেছে। যদিও যৌনশিক্ষা পাঠক্রমে কনডমের ব্যবহার ইত্যাদি প্রসঙ্গে কনডম নিয়ে কিছু বিতর্কও সৃষ্টি হয়েছে।