এবার ‘হ্যান্ড অব রেফারি’ আবিষ্কার করলেন ম্যারাডোনা

65

ফুটবলে ‘ঈশ্বরের হাত’ কে না চেনে! ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপে ‘হ্যান্ড অব গড’ গোলে ইংল্যান্ডকে ছিটকে দিয়েছিলেন ম্যারাডোনা- এ কথা সবারই জানা।

‘হ্যান্ড অব গড’ নয়, রাশিয়া বিশ্বকাপে এসেছে ‘হ্যান্ড অব রেফারি’ কথাটি। আর সেটিও এসেছে কিংবদন্তি ম্যারাডোনার হাত ধরেই। এবার ইংল্যান্ডের জয়ের পেছনে ‘হ্যান্ড অব রেফারি’ দেখছেন তিনি। মঙ্গলবার রাতে প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচে প্রথমে হ্যারি কেনের পেনাল্টিতে এগিয়ে যায় ইংল্যান্ড। শেষ মুহূর্তে গোল শোধ করে কলম্বিয়া। টাইব্রেকে ম্যাচ জেতে ইংল্যান্ড। এ ম্যাচের রেফারি ছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মার্ক গিগার।

আর ওই পেনাল্টি নিয়ে ম্যারাডোনা রেফারিকে তুলেছেন কাঠগড়ায়। ম্যারাডোনার মতে, রেফারির সাহায্য না পেলে শেষ আটে যেতে পারতেন না হ্যারি কেনরা।

হ্যারি কেনের পেনাল্টি পাওয়া নিয়ে ম্যারাডোনার মন্তব্য, ‘কোনো সময়ই ওটা ফাউল ছিল না। বরং আমি বলব, দোষটা পুরোপুরি কেনের। রেফারি অন্যদিকে তাকিয়ে ছিল। যখন মাথা ঘোরায়, তখন দেখে হ্যারি কেন মাটিতে পড়ে আছে।

হ্যারি নিজে হাত দিয়ে স্যাঞ্চেসকে জড়িয়ে ধরেছিল। তার পর ইচ্ছাকৃতভাবে পড়ে যায়।’

রেফারিকে ম্যারাডোনা কটাক্ষ্য করেন, ‘রেফারি বেসবল নিয়ে অনেক কিছু জানতে পারে। কিন্তু ফুটবল নিয়ে ও কিছুই জানে না। ‘দুবার ইংল্যান্ডের ফুটবলাররা ইচ্ছাকৃতভাবে মাটিতে পড়ে গিয়েছিল। কিন্তু রেফারি কিছু বলেননি।’

আর্জেন্টিনার এক টিভি চ্যানেলে ম্যারাডোনার পরিষ্কার বক্তব্য দেন- ‘আমি একটা বিশাল চুরি দেখতে পাচ্ছি। কলম্বিয়ার মানুষের কাছে আমি ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। কলম্বিয়ার মানুষের বোঝা উচিত, এই হারের জন্য তাদের দেশের ফুটবলাররা দায়ী নয়।’
ম্যারাডোনা রেফারির সঙ্গে ইংল্যান্ডের ফুটবলারদেরও কড়া সমালোচনা করেছেন। রাশিয়া বিশ্বকাপে একের পর এক বিতর্কে জড়িয়েছেন ম্যারাডোনা। এবার ‘হ্যান্ড অব রেফারি’ বিতর্কিত মন্তব্য করে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করলেন দিয়েগো ম্যারাডোনা।

তবে এ নিয়ে মাথা ঘামাননি বিশ্বকাপ ফুটবলমঞ্চের কেউ। কেননা সবাই জানেন ইংল্যান্ডের সঙ্গে ম্যারাডোনার কখনই সম্পর্ক ভালো ছিল না।

তা ছাড়া ম্যাচের আগে কলম্বিয়ার জার্সি পরে ফেসবুকে ছবি দিয়ে ম্যারাডোনা লিখেছিলেন- কলম্বিয়ার পাশেই আছি। এ থেকে ম্যারাডোনা বুঝিয়ে দিয়েছেন, তিনি এখনও ইংল্যান্ডবিরোধীই আছেন।