সর্বশেষ সংবাদ

আর কত ঘটনা এভাবে চাপা পড়ে যাবে প্রশ্ন মানবতার কাছে!

মোঃ জাবের হোসেনঃ মানবতা,দয়া আর ভালোবাসা তিনটা জিনিস মানবজীবনে অতি প্রয়োজনীয়। মানবতা না থাকলে মানুষ পশুতে পরিণত হয়।দয়া না থাকলে পৃথিবীতে চলাচল করা কষ্টসাধ্য আর ভালোবাসার জন্যই আমরা বেঁচে আছি। বেঁচে থাকার জন্য একে অন্যের সাহায্য প্রয়োজন।অন্যের সাহায্য ছাড়া আমরা এক মূর্হুত্য চলতে পারিনা। সেই মায়ের গর্ভ থেকে যতদিন বেঁচে থাকি ততদিন অন্যের সাহায্য নিয়েই চলতে হয় একে-অন্যের। যেমনটি ডাক্তার ছাড়া রোগী অসহায়,পানি ছাড়া মাছ,ভালোবাসা ছাড়া মানুষ।

সৃষ্টিকর্তা এই পৃথীবিতে ১৮ হাজার মাখলুকাত সৃষ্টি করেছেন। প্রত্যেক প্রাণীর মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হয়। সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টি মাখলুকাতের মধ্যে সব থেকে ভিন্ন আর অসাধারণ মানুষ।মানুষই একমাত্র প্রাণী যার বিবেক -বুদ্ধি দিয়ে সৃষ্টিকর্তা পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন।

বৃদ্ধি আছে বলেই মানুষ পৃথিবীতে রাজত্ব করে।বিলাস বহুল জীবনযাপন করতে পারে।অন্য প্রাণীকে নিজের বশ্যতা স্বীকার করাতে বাধ্য করে,নিজের বশে আনে। মানুষ কিন্তু অন্যের বশ্যতা স্বীকার করলেও সুযোগ পেলে ছোবল মারতে দ্বিধাবোধ করেনা। পৃথিবীতে হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন হত্যা হচ্ছে এই আমাদের হাত দ্বারা।কত মানুষকে জীবন দিতে হচ্ছে বিনা কারণে।অকালে ঝরে যাচ্ছে প্রাণ।ইসলামে ফিৎনা নিষিদ্ধ। জীবন মানেই যদি হত্যা হতো তাহলে পৃথিবীতে আইন তৈরি হতো না। জীবন মানে যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা নয়। হত্যা কোনো শান্তি আনেনা।

প্রতিদিন শত শত নিরীহ মানুষের রেষারেষির কারণে জীবন দিতে হচ্ছে। কোনটা প্রেম ঘটিত কারণ,কোনটা অর্থ ঘটিত আবার কোনটা পারিবারিক দ্বন্ধ। দ্বন্দে দ্বন্দে জীবন এখন যন্ত্রচালিত মেশিনে পরিণত হতে চলেছে।

সাংবাদিক সাগর-রুনি হত্যা, সোহাগী জাহান তনু হত্যা,ফেনির নুসরাত হত্যাকান্ডের ঘটনা দেশবাসীকে বিমোহিত করেছে।বিবেককে নাড়া দিয়েছি। তাই বলে এসব ঘটনা কিন্তু বন্ধ নেই। একের পর এক ঘটতেই আছে। আর এসবের বিচার প্রক্রিয়া এত ধীর সম্পন্ন যে,মানুষের আস্থা আর ধোর্য্য থাকেনা। ঘটনা ঘটে,আসামিরা জেলে যায় কিন্তু ছাড়াও পেয়ে যায় কীভাবে জানিনা। দেশে এখনো হাজার হাজার মামলা বিচারাধীন। কবে নাগাদ এই বিচার প্রক্রিয়া শেষ হবে তা কেউ জানেনা।তারমধ্যে প্রতিদিনই নতুন নতুন ঘটনা যোগ হচ্ছে। ঘটনা ঘটার কিছুদিন একটু তোড়জোড় হয়।তাও হতোনা যদি কিনা মিডিয়া না থাকতো।যতটুকু হয় সব মিডিয়ার কারণেই হয়।কিন্তু কিছুদিন পর সেই ঘটনা আবার মাটি চাপা পড়ে যায়। লোকচক্ষুর অন্তরালে চলে যায় ঘটনা।ছাড়া পেয়ে যায় আসামিরা। থমকে যায় বিবেক।

কতদিন গেলে এসব ঘটনার বিচার দ্রুত হবে সেটি সবার প্রত্যাশা। মাত্র ২ দিন হলো বরগুনার কলেজ সড়কে স্ত্রীর সামনে দিনে দুপুরে রিফাত শরীফকে হত্যা করেছে কিছু লোক। এটা নিয়ে এখন রেড অ্যালার্ট জারি করেছে। অপরাধিরা সবাই ধরা পড়লেও বাস্তবে কতটুকু সুষ্টু বিচার পাবে তার পরিবার সেটি সবার জানা। কিন্তু দুঃখের বিষয় কয়েকদিন গেলেই এটা আবারো কোন এক অজানা কারণে মুছে যাবে।তখন আর এর বিচার প্রক্রিয়া সামনে এগুবেনা।থমকে যাবে সবকিছু।

কিন্তু এভাবে আর কত শত ঘটনা চাপা পড়ে থাকবে? যখন আপনার বা আমার বেলায় ঘটবে তখন কি আর আমরা সুযোগ পাবো সংশোধনের? ঘটনাগুলো বার বার মানবতার কাছে জিতে যায়,হেরে যায় মানবতা।

লেখক : সম্পাদক ও প্রকাশক,লাল সবুজের কথা

error: লাল সবুজের কথা !!