অন্যায় যেই করুক ছাড় দেয়া হবে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

11
অন্যায় যেই করুক ছাড় দেয়া হবে না স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক: অন্যায় যেই করুক তাকে কোনো ছাড় দেয়া হবে না। সেই ব্যক্তি সমাজের অধিপতি হোক, রাজনীতিবিদ হোক কিংবা নির্বাচনের জনপ্রতিনিধি হোক অন্যায় করলে কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

রোববার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের প্রধান কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শুধুমাত্র মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেননি পাশাপাশি তিনি সমাজে সুশাসন প্রতিষ্ঠার কথা বলেছেন। যারা মাদক বিক্রি করে অন্যায়ভাবে টাকা উপার্জন করে তারা সেটি অন্যায়ভাবেই (ক্যাসিনোতে) ব্যয় করে। তবে কাউকেই ছাড় দিচ্ছি না আমরা, ছাড় দেয়া হবেও না।

মাদকবিরোধী অভিযান স্তিমিত হয়েছে কি না? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, অভিযান মোটেও স্তিমিত হয়নি। যারা মাদকব্যবসা করে, মাদক ব্যবসায় বিনিয়োগ করে, বড় বড় মাদক সম্রাটদের সবাইকেই ধরা হয়েছে। এসব কার্যক্রমের পাশাপাশি আমরা দেশে মাদকের চাহিদা কমানোর চেষ্টা করছি। তারই অংশ হিসেবে এই অনুষ্ঠান (টিভিসি উদ্বোধন)।

তিনি বলেন, ‘মাদক ও ধূমপানের বিরুদ্ধে আমাদের প্রচেষ্টার কারণে আজ তা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। আজ কেউ প্রকাশ্যে ধূমপান করে না। কেউ করলে আড়ালে গিয়ে করে।’

kamal-1.jpg

কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মাদক তৈরি হচ্ছে কি না? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, একটা ছোট জায়গায় ১১ লাখ রোহিঙ্গা বসবাস করে। তাদের ম্যানেজ করা অনেক দুরুহ। আমার জানামতে সেখানে মাদক তৈরি হয় না, তবে তাদের কেউ কেউ এই ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে৷ আমরা সবাইকে নজরদারিতে রেখেছি।

এছাড়াও আপনারা জানেন মাদক আমাদের দেশে তৈরি হয় না। পার্শ্ববর্তী মিয়ানমার থেকে আসে। সীমান্তে অনেক জায়গা আছে যেগুলো ইনএক্সেসেবল ছিল। আমরা বিজিবিকে হেলিকপ্টার দিয়েছি সেসব জায়গায় টহল বৃদ্ধির জন্য। পাশাপাশি কোস্টগার্ডকেও শক্তিশালী করা হয়েছে।

এর আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর ও কোরিয়ান সহযোগিতায় তৈরি নার্কোটিকস ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের (সিআইএমএস) উদ্বোধন করেন। এই ওয়েবসাইটটির মাধ্যমে অধিদফতরের কর্মকর্তারা যে কোনো জায়গা থেকে ল্যাপটপে বসে মামলার ফলোআপ, লাইসেন্স ম্যানেজমেন্ট, স্যাম্পল এনালাইসিস ম্যানেজমেন্ট, অপারেশন ও হসপিটাল ম্যানেজমেন্টের কাজ করতে পারবেন।

এছাড়াও অধিদফতরের নির্মিত ‘মাদককে না বলুন’ বিষয়ক একটি টেলিভিশন বিজ্ঞাপন সম্প্রচার করা হয়।